• শনিবার   ০২ জুলাই ২০২২ ||

  • আষাঢ় ১৮ ১৪২৯

  • || ০৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৩

সুরক্ষা বলয় ছেড়ে অতীতে ফেরার সিরিজ

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ৬ মে ২০২২  

করোনাভাইরাসের আতঙ্ক তখন রীতিমতো গোটা দুনিয়া কাঁপাচ্ছিল। ২০২০ সালের মার্চে এমন আতঙ্কের মধ্যেই স্বাভাবিক জীবনধারায় বাংলাদেশ ক্রিকেট দল হোম সিরিজ খেলছিল জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে। সিরিজ শেষ হওয়ার আগেই করোনার ভয় গ্রাস করে পুরো বাংলাদেশকে। সিরিজটার ইতি ঘটলেও করোনার আক্রমণে জীবনের মতোই থমকে গিয়েছিল ক্রিকেট।

পরে আর সবকিছুর মতো করোনার কারণে ক্রিকেটের স্বাভাবিক গতি ঠিক থাকেনি। মানুষের মুখে যেমন মাস্ক এসেছে, তেমনি ক্রিকেটেও স্বাস্হ্যবিধির মাধ্যমে জৈব সুরক্ষা বলয় (বায়ো-বাবল), কোয়ারেন্টিন জাতীয় অনেক কিছুর আবির্ভাব ঘটেছে। নিয়মশৃঙ্খলার বেড়াজালে দর্শকহীন ক্রিকেটও হয়েছে বিশ্ব জুড়ে।

করোনাকালে সুরক্ষা বলয়সহ ঘরের মাঠে বাংলাদেশ দলের প্রথম আন্তর্জাতিক সিরিজ ছিল ২০২১ সালের শুরুতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজে। তারপর সবগুলো সিরিজেই বলয়বন্দী থাকা, কোয়ারেন্টিনের ঝক্কি বিদ্যমান ছিল। গত কিছুদিনে সারা পৃথিবীর মতো বাংলাদেশের করোনা পরিস্হিতির বড়সড় উন্নতি হয়েছে। আক্রান্ত, মৃত্যুর সংখ্যা বহুলাংশে কমেছে। টিকা নিয়েছেন কোটি কোটি জনতা, স্বাভাবিক গতি ফিরেছে জনজীবনে।

এবার অতীতে ফেরার পালা ক্রিকেটেরও। দুই টেস্ট খেলতে আগামী ৮ মে বাংলাদেশ সফরে আসছে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দল। এই সিরিজে গ্যালারিতে থাকবে দর্শক, থাকবে না জৈব সুরক্ষা বলয়, কোয়ারেন্টিনের বাধ্যবাধকতা। করোনার আতঙ্ক ভুলে সুরক্ষা বলয় ছাড়া এটিই হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ দলের প্রথম আন্তর্জাতিক সিরিজ।

তারপরও কিছু নিয়ম, স্বাস্হ্যবিধি অনুসরণ করতেই হবে দুই দলের ক্রিকেটারদের। যেমন বিসিবির মেডিক্যাল বিভাগ ঈদের সময় ক্রিকেটারদের জন সমাগম এড়িয়ে চলতে পরামর্শ দিয়েছিল। এই সিরিজে দুই দলের সবাইকে দুইবার করোনা পরীক্ষা করা হবে। এর বাইরে উপসর্গ দেখা দিলে তৎক্ষণাত পরীক্ষা করা হবে।

বিসিবির চিকিৎসক মনজুর হোসেন গতকাল জানিয়েছেন এসব তথ্য। জানতে চাইলে তিনি বলেছেন, ‘এবার আর জৈব সুরক্ষা বলয় থাকছে না। কোনো কোভিড প্রোটোকলও নেই। ভ্যাকসিনের দুটো ডোজ নেওয়া থাকলে পৃথিবীর কোনো দেশেই এখন ভ্রমণে কোনো সমস্যা নেই। আমাদের দলের কোচিং স্টাফের বিদেশি সদস্য এমনকি শ্রীলঙ্কা দলেরও কোয়ারেন্টিন করতে হবে না। তবে দুই দলের সদস্যদের মাস্ক ব্যবহারে উৎসাহিত করা হবে এবং জনসমাগম যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলার পরামর্শও থাকবে তাদের প্রতি।’

উভয় দলের দুইবার করোনা পরীক্ষার ব্যবস্হা রেখেছে বিসিবি। মনজুর হোসেন বলেন, ‘দুই দল চট্টগ্রাম যাওয়ার পর তাদের কোভিড টেস্ট হবে। সিরিজ চলাকালে যদি কারও মধ্যে উপসর্গ দেখা যায়, জরুরি ভিত্তিতে তার টেস্ট করার ব্যবস্হা নেওয়া হবে। এছাড়া প্রথম টেস্ট খেলে দুই দল যখন ঢাকা ফিরবে, তখনো আরেক দফা সবারই কোভিড টেস্ট হবে।’

এদিকে, বাংলাদেশের ব্যাটিং কোচ জেমি সিডন্স ইতিমধ্যে ঢাকায় চলে এসেছেন। দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের পর ছুটিতে অস্ট্রেলিয়া গিয়েছেন তিনি। অন্য বিদেশি কোচরাও আগামীকাল পৌঁছে যাবেন ঢাকায়। ৯ মে চট্টগ্রামে শুরু হবে বাংলাদেশ দলের ক্যাম্প। তার আগের দিন পুরো দল যাবে বন্দরনগরীতে। জাতীয় দলের নির্বাচক হাবিবুল বাশার সুমন গতকাল বলেছেন, ‘৯ মে থেকে চট্টগ্রামে শুরু হবে ক্যাম্প। এর আগে ৭ তারিখেই চলে আসবেন কোচিং স্টাফের বিদেশি সব সদস্যরা।’

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ