• বুধবার   ৩০ নভেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৬ ১৪২৯

  • || ০৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

যে কারণে বিএনপির মুখে অগ্নিকাণ্ড নিয়ে মন্তব্য শোভা পায় না

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯  

সম্প্রতি চকবাজারের অগ্নিকাণ্ড নিয়ে রাজনৈতিক কৌশল শুরু করেছে বিএনপি। অথচ বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার ক্ষমতার লোভে এবং ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে যেসব ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটিয়েছে তা কেবল অগ্নিকাণ্ড নয়, অগ্নিসন্ত্রাসও বটে। ফলে রাজনৈতিক মহলে আলোচনা উঠেছে, যারা মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করে তাদের মুখে চকবাজারের অগ্নিকাণ্ড নিয়ে মন্তব্য শোভা পায় না।

এ প্রসঙ্গে সম্প্রতি রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, চকবাজারের অগ্নিকাণ্ড নিয়ে সরকারকে দায়ী করে বিএনপি দায়িত্বজ্ঞানহীন ও অগ্রহণযোগ্য বক্তব্য দিচ্ছে। সরকারবিরোধী আন্দোলনের নামে তারা অগ্নিসন্ত্রাস করেছে।

বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, ২০১৩ সালে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বন্ধ করার জন্য বিএনপির পক্ষ থেকে জামায়াত-শিবির সমর্থকরা আগুনসন্ত্রাস সৃষ্টি করে প্রায় ৪১৯টি প্রধান ঘটনা ঘটায়। এতে ৪৯২ জন নিহত হয় এবং ২২০০ জন আহত হয়।

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের বিরোধিতা করে বিএনপি-জামায়াত জোট সন্ত্রাসের রাজত্ব শুরু করে। তারা সেসময় শত শত যানবাহন ভাঙচুর করে সেগুলোতে আগুন ধরিয়ে দেয়। ওই ঘটনায় তাদের পেট্রোল বোমা, হাতে বানানো বোমা এবং অন্যান্য সহিংসতায় ২০জন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যসহ ২০০ জনেরও বেশি মানুষ নিহত হয়।

২০১৫ সালের ৪ জানুয়ারি নির্বাচনের এক বছর পূর্তির দিন আবারও জ্বালাও-পোড়াও শুরু করে সন্ত্রাসের রাজত্ব শুরু করতে চায় বিএনপি-জামায়াত জোট। ওই সময় ২৩১ জনকে হত্যা করে তারা। যাদের বেশিরভাগই পেট্রোল বোমা এবং আগুনে দগ্ধ হয়ে মারা যায়। ওই ঘটনায় আহত হয় আরো ১ হাজার ১শ’ ৮০ জন। সেসময় ২,৯০৩টি গাড়ি, ১৮টি রেলগাড়ি এবং ৮টি যাত্রীবাহী জাহাজে আগুন লাগিয়ে হামলা চালায় তারা। ওই সময় হামলার লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হয় সরকারি অফিসগুলো। আর, বিএনপি-জামায়াতের ভাঙচুর এবং আগুনে পুড়ে ৬টি ভূমি অফিসসহ ৭০টি সরকারি কার্যালয় নষ্ট হয়ে যায়।

এমনকি বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে অগ্নি দুর্ঘটনাও কম নয়। বিএনপি সরকারে থাকা অবস্থায় ১৯৯৫ সালে ইব্রাহিমপুরে লুসাকা অ্যাপারেলে অগ্নিকাণ্ডে ১০ জন শ্রমিকের নির্মম মৃত্যুর পরও ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে বিএনপির না থাকার কথা সবারই জানা। ২০০১ সালে মিরপুরে মিকো সোয়েটারে ২৪ জন শ্রমিকের মৃত্যুর পর বিএনপি সরকার অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর পাশে না দাঁড়িয়ে উল্টো দলীয় কর্মীদের দিয়ে চাঁদাবাজিতে লিপ্ত হয়। ১৯৯৬ সালের শুরুর দিকে প্রহসনের নির্বাচন দিয়ে জোর করে ক্ষমতা কুক্ষিগত করার কিছুদিনের ভেতর ঢাকার তাহিদুল ফ্যাশনে একটি বড় ধরনের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। যেখানে ১৪ জন মানুষের মৃত্যু হয়। একই বছর ১৯৯৬ সালে সানটেক্স লিমিটেড কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে ১৪ জন মানুষের মৃত্যু হয়।

রাজনৈতিক বিশ্লেষরা বলছেন, চকবাজারসহ এমন যেকোনো দুর্ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিএনপি রাজনৈতিক ফায়দা লুটতে সরকারকে দোষারোপ করছে। অথচ তারা ভুলে যায়, বিভিন্ন সময়ে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে কত সংখ্যক মানুষকে পুড়িয়ে মেরেছে বিএনপি!

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ