• শনিবার   ০২ জুলাই ২০২২ ||

  • আষাঢ় ১৮ ১৪২৯

  • || ০৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৩

বিশ্বের কয়েকজন ধনী মুসলিম নারী

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২২  

শুধু পুরুষরাই নন, অনেক নারীরাও এখন বিপুল অর্থ-বিত্তের মালিক। বিশ্বের সবচেয়ে ধনী মুসলিম নারীদের সম্পদ আসে তিনটি উৎস থেকে: বিত্তশালী স্বামী, বাবা-মায়ের কাছ থেকে পাওয়া অর্থ ও নিজের উপার্জন। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক বিশ্বের সবচেয়ে সেরা কয়েকজন ধনী মুসলিম নারী সম্পর্কে-  

প্রিন্সেস মজিদা নুরুল বোলকিয়াহ

 

প্রিন্সেস মজিদা নুরুল বোলকিয়াহ

প্রিন্সেস মজিদা নুরুল বোলকিয়াহ


ব্রুনাই প্রিন্সেস মজিদা নুরুল বোলকিয়াহ। তিনি বিশ্বের সেরা মুসলিম ধনী নারীদের মধ্যে অন্যতম। তার বাবা হাসানাল বোলকিয়াহ বিশ্বের অন্যতম ধনী ব্যক্তি। ব্রুনাইয়ের সুলতান হাসানাল বোলকিয়াহর দ্বিতীয় নাতনী প্রিন্সেস মজিদা ব্যবসায় প্রশাসনে ডিগ্রী অর্জন করেছেন। তিনি ২০০৭ সালে তার থেকে তিন বছরের ছোট খাইরুল খলিলের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। খলিলও রাজপরিবারের সদস্য এবং প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে কাজ করেছেন। 

 

প্রিন্সেস হাজাহ হফিজা সুরুরুল বোলকিয়াহ

 

প্রিন্সেস হাজাহ হফিজা সুরুরুল বোলকিয়াহ

প্রিন্সেস হাজাহ হফিজা সুরুরুল বোলকিয়াহ


ব্রুনাইয়ের সুলতানের চতুর্থ কন্যা প্রিন্সেস হাজাহ হফিজা সুরুরুল বোলকিয়াহ। তার পিতা সুলতান হাসানাল বোলকিয়াহকে বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তিদের মধ্যে গণ্য করা হয়। ব্রুনাইয়ের সুলতানের পারিবারিক গাড়ির সংখ্যা সাত হাজার আর তার প্রাসাদে কামরার সংখ্যা এক হাজার ৭০০। প্রিন্সেস হাজাহ হফিজা সুরুরুল বোলকিয়াহর বাবার ২০০ মিলিয়ন ডলারের সম্পত্তি রয়েছে।

 

প্রিন্সেস ফাতিমা-কুলসুম-জোহর গোদাবরি

 

প্রিন্সেস ফাতিমা-কুলসুম-জোহর গোদাবরি

প্রিন্সেস ফাতিমা-কুলসুম-জোহর গোদাবরি


সৌদি আরবের রাজকুমারী প্রিন্সেস ফাতিমা-কুলসুম-জোহর গোদাবরি, তিনি বর্তমানে সৌদি শেখ আবদে আল মাহমুদের স্ত্রী তথা সৌদি আরবের রানী। সৌদির অন্যতম ধনী রাজপরিবারের সদস্য প্রিন্সেস ফাতিমা সবসময় পর্যাবৃত্ত থাকেন বলে তার সৌন্দর্য খুব কমই প্রকাশ পায়। তাকে বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দরী নারীদের একজন বলে মনে করা হয়। 

 

শেখা হানাদি বিন্তি নাসের বিন খালেদ আল থানি

 

শেখা হানাদি বিন্তি নাসের বিন খালেদ আল থানি

শেখা হানাদি বিন্তি নাসের বিন খালেদ আল থানি

কাতারের শেখা হানাদি বিন্তি নাসের বিন খালেদ আল থানি রিয়াল এস্টেট, পুঁজি বিনিয়োগ ব্যাংক ম্যানেজারসহ নানা কাজে জড়িত। কাতারের সবচেয়ে ধনী নারীদের মধ্যে অন্যতম শেখা হানাদি টানা কয়েক বছর ধরে সবচেয়ে প্রভাবশালী আরবদের তালিকায় রয়েছেন। তিনি কাতার বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্থনীতিতে সহকারি প্রভাষক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করলেও পরবর্তীতে কাতার কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে লাইসেন্স প্রাপ্ত প্রথম বিনিয়োগ কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেন। শেখা হানাদি তার ক্যারিয়ার জুড়ে অসংখ্য পুরস্কার এবং স্বীকৃতি পেয়েছেন। ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম তাকে ইয়াং গ্লোবাল লিডার হিসেবে মনোনীত করেছেন। 

 

সুলতানাহ নুর জাহিরা

 

সুলতানাহ নুর জাহিরা

সুলতানাহ নুর জাহিরা


সুলতানাহ নুর জাহিরা পিতার কাছ থেকে পাওয়া ১৫ বিলিয়ন ডলারের সম্পত্তি নিয়ে ধনী মুসলিম নারীদের মধ্যে স্থান দখল করে নিয়েছেন। তিনি মালয়েশিয়ার রাজা আল ওয়াথিকু বিল্লাহ তুয়ানকু মিজান জয়নালের স্ত্রী। রাজকীয় এই দম্পতির চার সন্তান রয়েছে। 

 

শেখা মোজাহ বিন্তি নাসের আল-মিসনদ

 

শেখা মোজাহ বিন্তি নাসের আল-মিসনদ

শেখা মোজাহ বিন্তি নাসের আল-মিসনদ


শেখা মোজাহ বিন্তি নাসের আল-মিসনদ কাতার রাজ্যের সাবেক আমির শেখ হামাদ বিন খলিফা আল-থানির দ্বিতীয় স্ত্রী। ফোর্বসের ১০০ ক্ষমতাশীল নারীদের তালিকায় তিনি ৭৫ নাম্বারে রয়েছেন। কাতার ইউনিভার্সিটি থেকে সমাজবিজ্ঞানী বিএ ডিগ্রী অর্জন করা শেখ মোজা ট্রেনের নামক একটি ফরাসি লেদার পণ্য প্রস্তুতকারী কোম্পানির মালিক।

 

শেখা মায়থা বিন্তি মোহাম্মেদ বিন রশিদ আল-মখতুম

 

শেখা মায়থা বিন্তি মোহাম্মেদ বিন রশিদ আল-মখতুম

শেখা মায়থা বিন্তি মোহাম্মেদ বিন রশিদ আল-মখতুম


দুবাই শেখা মায়থা বিন্তি মোহাম্মেদ বিন রশিদ আল-মখতুমের পিতা শেখ মুহাম্মদ বিন রশিদ আল মখতুম সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রধানমন্ত্রী এবং প্রেসিডেন্টের পদে ছিলেন। শেখা মায়থা মূলত একজন কারাদ এবং তায়কন্ডো ক্রীড়াবিদ। তিনি ২০০৬ সালে এশিয়ান গেমসে সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রতিনিধিত্ব করে মহিলাদের ক্যারাটে ইভেন্টে রৌপ্যপদক অর্জন করেছিলেন। ২০০৮ সালে তিনি ফোর্বস ম্যাগাজিনের ২০ হস্টেস ইয়াং র‍্যেলসের তালিকায় ১৭ তম স্থানে ছিলেন।

 

প্রিন্সেস লাল্লা সালমা

 

প্রিন্সেস লাল্লা সালমা

প্রিন্সেস লাল্লা সালমা


মরক্কো রাজকুমারী প্রিন্সেস লাল্লা সালমা। দেশটির ষষ্ঠ রাজা মোহাম্মদের প্রত্ন স্ত্রী। পিতা পেশায় একজন শিক্ষক। তিনি তার ইঞ্জিনিয়ারিং পড়াশোনা শেষ করার পর মরক্কোর বৃহত্তম প্রাইভেট হোল্ডিং কোম্পানি ওএনএতে তথ্য পরিষেবা প্রকৌশলী হিসেবে কয়েক মাস কাজ করেছিলেন। এই কোম্পানিটি মরক্কোর রাজপরিবার দ্বারা পরিচালিত হয়। সেখানে এক পার্টিতে প্রত্ন স্বামী রাজা মোহাম্মাদের সঙ্গে তার দেখা হয়েছিল।

 

প্রিন্সেস আমিরা আল-তাউয়িল

 

প্রিন্সেস আমিরা আল-তাউয়িল

প্রিন্সেস আমিরা আল-তাউয়িল


সৌদি আরবের রাজকুমারী এবং সমাজসেবী প্রিন্সেস আমিরা আল-তাউয়িল। তিনি তার থেকে ২৮ বছরের বড় দূরবর্তী চাচাতো ভাই প্রিন্স আল ওয়ালিদ বিন তালালকে বিয়ে করেছিলেন। পরবর্তীতে ২০১৩ সালে বিবাহ বিচ্ছেদের পর আমিরাতে বিলিয়নিয়ার খলিফা বুটি বিন ওমাইর আল মুহাইরিকে বিয়ে করেন।

 

মহারানি রানিয়া

 

মহারানি রানিয়া

মহারানি রানিয়া


জর্ডানের মহারানি রানিয়া আর দেশটির রাজা আবদুল্লাহ ইল ইবন আল-হুসেনের স্ত্রী। তিনি সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশ সড়ক। ফেসবুক, ইউটিউব, টুইটারে নিয়নিত পোস্ট দিয়ে থাকেন তিনি। শিশুদের কল্যাণের জন্য বিশ্বব্যাপী আন্দোলনে তিনি নেলসন ম্যান্ডেলাসহ অন্যান্য নেতাদের সঙ্গে কাজ করেছিলেন।

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ