• বৃহস্পতিবার   ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ২০ ১৪২৯

  • || ১২ রজব ১৪৪৪

শপথ ঠেকাতে একমত বিএনপি নেতারা, উসকানির অভিযোগ

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ২৯ এপ্রিল ২০১৯  

 

লোভ-লালসার ঊর্ধ্বে উঠে সরকারবিরোধী আন্দোলনের অংশ হিসেবে যেকোন উপায়ে বিএনপির নির্বাচিতদের শপথ থেকে দূরে রাখার সকল চেষ্টা করছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্যরা। শনিবার (২৭ এপ্রিল) রাত সোয়া ৮টায় গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক বৈঠক এমন সিদ্ধান্ত হয়।

বিএনপির প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান এ তথ্য জানিয়েছেন।

এদিকে বৈঠক সূত্র বলছে, বৈঠকের শুরুতেই বিএনপির নির্বাচিত প্রার্থী জাহিদুর রহমানের শপথ নিয়ে নানাবিধ আলোচনা হয়। আলোচনায় মাহবুবুর রহমান বলেন, জাহিদুর শপথ নেয়ায় বিএনপির বাকি বিজয়ীরা ক্ষমতার প্রলোভনে পড়বেন। বিজয়ীদের কেউ যাতে করে নতুন করে শপথ নিতে না পারে সেজন্য দলকে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য আহ্বান জানান তিনি। দলের বেশ কজন সিনিয়র নেতা নির্বাচিতদের প্রলুব্ধ করছেন, এমন অভিযোগ করলে বৈঠকে তর্ক শুরু হয়। পরোক্ষভাবে ব্যারিস্টার মওদুদকে শপথের ইন্ধনদাতা হিসেবে ইঙ্গিত করলে হইচই শুরু হয়। উপযুক্ত তথ্য-প্রমাণ ছাড়া অভিযোগ করায় মাহবুবুর রহমানের ওপর চড়াও হন মওদুদ। পরবর্তীতে মির্জা ফখরুলের মধ্যস্থতায় বিষয়টি সমাধান হয়।

বৈঠকের সিদ্ধান্ত ও তর্কের বিষয়ে বিস্তারিত জানতে স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বিজয়ীদের শপথ ঠেকাতে সকল ধরণের পদক্ষেপ গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। প্রয়োজনে নির্বাচিতদের সঙ্গে ব্যক্তিগতভাবে দেখা করে শপথের বিপক্ষে জনমত সৃষ্টি করার জন্য গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। শপথের জন্য রাজনৈতিক মহলে যে গুঞ্জন চাউর হয়েছে তা রুখে দিতে চায় বিএনপি। দলকে বিপদে ফেলে, বেগম জিয়াকে জেলে রেখে নেতাদের শপথ নিতে দেয়া হবে না।

তর্কের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিপদের পাহাড়ে চাপা পড়েছে বিএনপি। এমন অবস্থায় সুযোগ সন্ধানীরা তো নিজেদের ভাগ্যোন্নয়নের পাঁয়তারা করবেন, এটাই সত্য। এর আগেও দল ভাঙ্গার অনেক চেষ্টা করা হয়েছে। লোভে-প্রলোভনে পড়ে অনেক বিএনপি নেতাই অতীতে এরকম ভুল করেছেন। যাক সেগুলো নিয়ে বিস্তারিত বলতে চাই না। শপথ ঠেকানো এখন আমাদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। সেই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করা কতটা সফল হবে, এটি নিয়ে আমাদের ভাবনার শেষ নেই।

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ