• শুক্রবার   ২৭ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১২ ১৪২৯

  • || ২৫ শাওয়াল ১৪৪৩

শুধু চেহারা নয়, সবকিছুতেই মিল ২ বোনের

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ২৩ ডিসেম্বর ২০২১  

সিরাজগঞ্জের মেয়ে অবনী হক অর্পা ও অতুন হক অর্থি যমজ বোন একই সঙ্গে বেড়ে উঠেছেন। যেমন মিল রয়েছে চেহারায়, তেমনি মিল রয়েছে পছন্দ ও পরীক্ষার সব ফলাফলেও। চেহারায় মিল দেখা গেলেও লেখাপড়া, মেধা, শখ, স্বপ্ন— সবক্ষেত্রেই মিলে যাবে এমনটা সচরাচর দেখা যায় না।

কিন্তু অদ্ভুত এই মিল রয়েছে উল্লাপাড়া উপজেলার সলঙ্গা থানার রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের চকবড়ই গ্রামের শিক্ষক ও স্বাস্থ্যকর্মী দম্পতির দুই কন্যা অবনী হক অর্পা ও অতুন হক অর্থির মাঝে।ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পাওয়া যমজ বোনের রয়েছে অদ্ভুত মিলপ্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে একই ফলের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষাতেও পেয়েছেন সমান স্কোর, সুযোগ পান একই বিষয়ে লেখাপড়া করার। অদ্ভুতভাবে সবকিছুতে একই রকম হওয়া যমজ বোনের সফলতায় আনন্দিত তাদের মা-বাবাসহ সবাই।

যমজ বলতে আমরা সাধারণত বুঝি দু’জন সহদোর একই মায়ের পেটে প্রায় একই সময়ে জন্মগ্রহণ করেন ও তাদের চেহারাতেও থাকতে পারে হুবহু মিল। কিন্তু লেখাপড়া, মেধা, শখ, স্বপ্ন সবক্ষেত্রেই মিলে যাবে এমনটা সচরাচর দেখা যায় না।তাদের পছন্দও একই রকম কিন্তু সিরাজগঞ্জের সলঙ্গা থানার চকবড়ই গ্রামের শিক্ষক আমিনুল হক স্বপন ও স্বাস্থ্যকর্মী লাভলী খাতুন দম্পতির যমজ সন্তান অবনী হক অর্পা ও অতুন হক অর্থির মধ্যে তেমনটাই দেখা গেছে। তাদের চেহারার পাশাপাশি লেখাপাড়া, সব পরীক্ষার ফলাফল, শখ, স্বপ্ন সব কিছুতেই রয়েছে দারুণ মিল। 

শিক্ষা জীবনের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত সব পরীক্ষায় বিস্ময়কর সাফল্য অর্জন করে চলেছে তারা। ১৯ বছরের এ যমজ বোন সম্প্রতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে উত্তীর্ণ হয়েছেন।বাবা-মায়ের সঙ্গে দুই বোন আশ্চর্যের বিষয় হলো ঢাবির ভর্তি পরীক্ষায় দু’জন পৃথক দুই ভবন থেকে পরীক্ষা দিলেও একই নম্বর পেয়েছে। ফলে দুজনের মেধা স্কোর হয়েছে একই। তাদের এমন বিস্ময়কর মিল ও সাফল্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমসহ এলাকায় ব্যাপক সাড়া ফেলেছে।

অবনী হক অর্পা ও অতুন হক অর্থির সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ২০১২ সালে দবিরগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পিএসসি পরীক্ষা দিয়ে দু’জনেই জিপিএ-৫ অর্জন করে। জেএসসিতে দক্ষিণ পুস্তিগাছা বনানী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে অংশ নিয়ে দুজনেই আবারও জিপিএ-৫ লাভ করে।২০১৮ সালে সিরাজগঞ্জ সবুজ কানন স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এসএসসি পরীক্ষা দিয়ে দুজনেই জিপিএ-৪.৯৪ পাওয়ার পাশাপাশি সব বিষয়েও একই পায়। ২০২০ সালে সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে এবারও দুজনেই গোল্ডেন জিপিএ-৫ অর্জন করে এবং তারা সাধারণ বৃত্তিলাভ করে।

চেহারা ও মেধায় দুইজনের হুবহু মিল থাকার পর আবার শখ, স্বপ্নও একই। তারা অবসরে গল্পের বই পড়তে ও ভ্রমণ করতে পছন্দ করেন। তাদের প্রিয় খাবার আইসক্রিম, চাইনিজ ও বিরিয়ানি। এছাড়াও অনেক বিষয়েই তাদের একে অপরের সঙ্গে মিল রয়েছে।তাদের বাবা আমিনুল হক স্বপন ঢাকা পোস্টকে বলেন, অর্পা ও অর্থির মধ্যে দেড় মিনিটের বয়সের ব্যবধান। শিশুকালে একজনের যে অসুখ হয়েছে অপরজনেরও তাই হয়েছে। একজনের কান্নায় কেঁদেছে অপরজনও। এমন মিল রেখেই উচ্চতর শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে মানবসেবায় নিয়োজিত থাকবে আজীবন, এমনটাই আমরা প্রত্যশা করি।

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ