সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১

সিরাজগঞ্জে তাড়াশে জমে উঠছে ঈদবাজার

সিরাজগঞ্জে তাড়াশে জমে উঠছে ঈদবাজার

সংগৃহীত

সিরাজগঞ্জের তাড়াশে জমে উঠছে এবারের ঈদবাজার। ঈদুল ফিতর সামনে রেখে কেনাকাটায় ব্যস্ত নারী-পুরুষ, শিশু-কিশোরেরা। সকাল থেকে প্রায় মধ্যরাত পর্যন্ত খোলা থাকছে দোকানপাট। বিশেষ করে ইফতারের পর বাজারে গিজগিজ করছে মানুষ। ক্রেতাদের ভিড় দেখে খুশি বিক্রেতারা। গত দুই বছর লোকসানের পর আবার লাভের মুখ দেখা যাবে বলে মনে করেছেন তাঁরা।

তাড়াশ বাজার ঘুরে দেখা যায়, পোশাকের দোকানগুলোতে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়। পুরুষদের চেয়ে নারীদের উপস্থিতি বেশি দেখা গেছে। ক্রেতা আকর্ষণে বাড়তি সাজসজ্জা ও নানা প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন ব্যবসায়ীরা।

ঈদ সামনে রেখে দোকানগুলোতে নারীদের নিত্যনতুন ডিজাইনের শাড়ি বিক্রি হচ্ছে। মেয়ের থ্রিপিস, সালোয়ার-কামিজ, লেহেঙ্গা, ছিট কাপড় বেশি বিক্রি হচ্ছে। এ ছাড়া ছেলেদের গ্যাবার্ডিন প্যান্ট, হাফশার্ট, ফতুয়া ও পাঞ্জাবি বিক্রি হতে দেখা গেছে।
ক্রেতারা বলছেন, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির কারণে আয়ের সঙ্গে মিল রেখে কেনাকাটা করছেন তাঁরা।

তাড়াশ বাজারের ব্রাদার্স শপিং সেন্টার পোশাক কিনতে এসেছিলেন মাসুদ রানা সরকার। তিনি জানান, রোজার আগে পরিবার ও নিজের জন্য কেনাকাটা শেষ করতে চেয়েছিলেন। ভালো ও সুন্দর সংগ্রহ শেষ হয়ে যাবে, তাই আগেভাগে পোশাক কিনে নিয়েছেন। তবে আয়ের সঙ্গে মিল রেখে কেনাকাটা করতে হচ্ছে তাঁকে।

তাড়াশ বাজারের কাপড় ব্যবসায়ী আলমগীর হোসেন জানান, এবার রমজানের শুরু থেকেই ক্রেতারা আসছেন। বিক্রিও ভালো। তিনি আরও বলেন পোশাকের সমাহার আর বাইরে ঝুলছে দেশি-বিদেশি কাপড়ের নমুনা। ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতে দোকানে রকমারি পোশাক শোভা পাচ্ছে। দেশি ছাড়াও পাকিস্তান, ভারতসহ বিভিন্ন দেশের পোশাকের পসরা সাজিয়েছে দোকানগুলো।

তাড়াশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.নজরুল ইসলাম বলেন, ‘মানুষ যেন কেনাকাটা করে নির্বিঘ্নে বাড়ি যেতে পারে, এ জন্য বাজার এলাকায় নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

ক্রেতা দোলা খাতুন বলেন, ‘বাজার ঘুরে দেখছি, পছন্দ হলে আর দামে মিললেই কিনে নেব। কাপড়ের চেয়ে জুতার দাম বেশি মনে হচ্ছে।’

তাড়াশ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের সহকারী শিক্ষক মো. কামরুজ্জামান টিপু ইসলাম বলেন, এবার পরিবারের সদস্যদের জন্য কিনতে হবে। ঈদের বাজারে পোশাক ও জুতার দাম বেশিই থাকে। তারপরও স্বজনদের খুশি করতে কিনতে হয়।

তাড়াশ বাজারের ব্যবসায়ী মো: আলমগীর হোসেন বলেন, ‘ঢাকা থেকেই বেশি দামে আমাদের ক্রয় করতে হচ্ছে। এখানকার বাজারেও বেশি দামে বিক্রি করতে হয়। অনেকে মনে করেন, আমরা ইচ্ছে করেই দাম বাড়িয়ে দিয়েছি। তবে বাজারে ক্রেতাদের সমাগম হচ্ছে। দুই বছর পর এবার ভালো বিক্রি হবে বলে মনে হয়।’

তাড়াশ বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো: আনোয়ার হোসেন খাঁন বলেন, ‘ঈদ সামনে রেখে ব্যবসায়ীরা নতুনভাবে প্রস্তুতি নিয়েছেন। এখন থেকেই ঈদের বাজার জমে উঠেছে। ঈদের কাছাকাছি সময়ে ক্রেতাদের আরও চাপ বাড়বে। ক্রেতারা যেন স্বস্তিতে ঈদের জিনিসপত্র ক্রয় করতে পারে, এ বিষয়ে ব্যবসায়ীদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

সর্বশেষ:

শিরোনাম:

পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে স্কুলজীবনের মজার স্মৃতিতে প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা
কাজিপুরে ভার্মি কম্পোস্ট সার বানিজ্যিকভাবে উৎপাদন শুরু
১৪ কিলোমিটার আলপনা বিশ্বরেকর্ডের আশায়
আলো ছড়াচ্ছে কুষ্টিয়ার বয়স্ক বিদ্যালয়
মেয়েদের স্কুলের বেতন না দিয়ে ধোনিদের খেলা দেখলেন তিনি
‘ডিজিটাল ডিটক্স’ কী? কীভাবে করবেন?
তাপপ্রবাহ বাড়বে, পহেলা বৈশাখে তাপমাত্রা উঠতে পারে ৪০ ডিগ্রিতে
নেইমারের বাবার দেনা পরিশোধ করলেন আলভেজ
দেশবাসীকে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা প্রধানমন্ত্রীর
ঈদের দিন ৩ হাসপাতাল পরিদর্শন স্বাস্থ্যমন্ত্রীর
আয়ারল্যান্ডের সর্বকনিষ্ঠ প্রধানমন্ত্রীকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন
জুমার দিনে যেসব কাজ ভুলেও করতে নেই