শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

মায়ের বিরুদ্ধে ৩ দিনের সন্তানকে বিক্রির অভিযোগ

মায়ের বিরুদ্ধে ৩ দিনের সন্তানকে বিক্রির অভিযোগ

সংগৃহীত

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে তিন দিন বয়সী শিশু সন্তানকে (ছেলে) বিক্রির অভিযোগ উঠেছে এক মায়ের বিরুদ্ধে। পাঁচ হাজার টাকায় নিজ শিশু সন্তান বিক্রির পর মা ভাড়া বাসা থেকে গ্রামের বাড়ির উদ্দেশে রওনা হন। উপজেলার রাখালিয়াচালা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

তবে ওই মায়ের দাবি, তিনি তার শিশু সন্তানকে দত্তক দিয়েছেন। শিশুকে বিক্রির কথা ছড়িয়ে পড়লে এলাকায় বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

তুহিনা আক্তার দিনাজপুরের বিরল উপজেলার জোসরাল গ্রামের সেলিম মিয়ার স্ত্রী। তিনি কালিয়াকৈর উপজেলার সফিপুর (পূর্বপাড়া) এলাকার একটি বাড়িতে বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস করেন।

নিজ সন্তানকে বিক্রির বিষয়ে জানতে চাইলে তুহিনা আক্তার বলেন, ‘বাচ্চা পালার টাকাপয়সা নাই। আমার জামাই আমারে ছাইড়া চইলা গেছে। আমি বেচে দেইনি, বাচ্চাটা তাদের দিয়া দিছি। তারা খুশি হইয়া আমারে একটা থ্রি পিস ও তিন হাজার টাকা দিছে। আমি এখন গ্রামের বাড়ি যাচ্ছি। পরে কথা বলবো।’

কালিয়াকৈর উপজেলার রাখালিয়াচালা গ্রামের প্রবাসী মনির হোসেনের স্ত্রী নাসিমা বেগম শিশুকে (ছেলে) দত্তক নিয়েছেন। নাসিমার ঘরে একটি মেয়ে রয়েছে। তাই তিনি একটি ছেলে সন্তান দত্তক নিয়েছেন।

স্থানীয়রা জানান, শিশুর মা তুহিনা আক্তারের গর্ভে সন্তান ধারণের ছয় মাস পর পারিবারিক কলহের জেরে তার স্বামী তাকে ছেড়ে চলে যান। স্বামী তাকে ছেড়ে চলে যাওয়ার পর তুহিনা আক্তার স্থানীয় একটি পলিথিন কারখানায় কাজ করে কোনও রকমে সংসার চলাচ্ছিলেন। কয়েক মাস আগে সেই চাকরিও ছেড়ে দেন তুহিনা আক্তার। গত বৃহস্পতিবার ছেলে সন্তানের জন্ম দেন।

তুহিনা আক্তারের মা খাদিজা আক্তার বলেন, আমার মেয়েকে অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় রেখে তার স্বামী আরেক নারীকে বিয়ে করে পালিয়ে গেছে। তুহিনার ঘরে আগেও তিন সন্তান রয়েছে। তাদের বয়স দেড় থেকে ছয় বছর। তার তিন সন্তানের লালনপালন করতেই হিমশিম খাইতে হচ্ছে। সম্প্রতি জন্ম নেওয়া শিশু পুত্রকে দত্তক দেওয়া হয়েছে।

এলাকাবাসী জানান, নগদ পাঁচ হাজার টাকা দিয়ে নাসিমা বেগম স্থানীয়দের মাধ্যমে শিশু বাচ্চাটি কিনে নিয়েছেন। এলাকাবাসীর কয়েকজনের উপস্থিতিতে নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর রেখেছেন তিনি।

সূত্র: বাংলা ট্রিবিউন