রোববার, ২৩ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১

বিশ্বজুড়ে প্রতি সেকেন্ডে ২৫ হাজার কাপ চা পান করেন মানুষ

বিশ্বজুড়ে প্রতি সেকেন্ডে ২৫ হাজার কাপ চা পান করেন মানুষ

সংগৃহীত

আচ্ছা, আপনি যদি চা প্রেমী হোন তাহলে একটা প্রশ্নের উত্তর দিন তো! আপনি দিনে কত কাপ চা পান করেন? ২, ৩ কিংবা ৪ কাপ? সর্বোচ্চ ৫ কাপ চা হয়তো দিনে পান করছেন। সকালে ঘুম থেকে উঠেই ধোঁয়া ওঠা চায়ের কাপে চুমুক দিনে দিন শুরু করেন অনেকে। এরপর অফিসে কাজের ফাঁকে, বন্ধুদের আড্ডায়, সন্ধ্যার নাস্তায় চা ছাড়া চলেই না।

তবে জানেন কি? প্রতি সেকেন্ডে বিশ্বজুড়ে ২৫ হাজার কাপ চা পান করেন মানুষ। হিসাবটা আরেকটু পরিষ্কার করা যাক, সারাদিনে এই সংখ্যা গিয়ে দাঁড়ায় ২ বিলিয়ন বা ২০০ কোটিতে। রং চা, আদা চা, দুধ চা, নানান মশলা মিশিয়ে চা পান করেন। তবে আমাদের দেশে ১০-১২ ধরনের চায়ের চল থাকলেও বিশ্বজুড়ে ৩ হাজারের বেশি রকমের চা পাওয়া যায়। একেক চায়ের একেক রকম বৈশিষ্ট্য।

চায়ের ইতিহাস ঘাঁটলে যতটুকু জানা যায়, চা পাতার ব্যবহার প্রথম শুরু হয়েছিল ২০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে কেক তৈরিতে। তাও আমার মৃত ব্যক্তিকে উৎসর্গ করার জন্য। এমনকি চা পাতা বিভিন্ন যুগে ওষুধি হিসেবে ব্যবহার করা হতো। তবে সেই চা আজকের চায়ে কীভাবে এলো সেটাও বেশ লম্বা ইতিহাস বটে।

চা পানীয় হিসেবে পান করার চল শুরু হয় চীনে। চীনের প্রচলিত একটি পৌরাণিক গল্প মতে, ১৭ শতাব্দীতে সেখানে বাস করতেন শেন মং নামের এক কৃষক। ঘুরে বেড়িয়ে নতুন ফসল আবিষ্কার করা ছিল তার নেশা। তখন বর্তমান প্রচলিত খাদ্য শস্য যেমন- ধান, গম, যব ইত্যাদির প্রচলন ছিল না। শেন মং একদিন খাবার উপযোগী শস্য এবং লতাপাতা আবিষ্কারের জন্য বনে বনে ঘুরে বেড়াচ্ছিলেন। অপরিচিত কোনো শস্য বা লতাপাতা পেলে সেগুলো চেখে দেখছিলেন। যদিও সবগুলোই খাবার উপযোগী ছিল না। এভাবে সারাদিন বিভিন্ন ফসল আবিষ্কার অভিযানে নিজের অজান্তেই শরীরে ৭২ এরও বেশি প্রকারের বিষ প্রবেশ করিয়ে ফেলেন।

সন্ধ্যায় একটি গাছের তলায় বসে বিশ্রাম নিচ্ছিলেন মং। বিষক্রিয়া দ্রুত তার শরীরে ছড়িয়ে পড়ছে। বসে বসে মৃত্যুর প্রহর গুণছেন। তারপর হঠাৎ কোথা থেকে যেন একটি অপরিচিত পাতা এসে মুখে পড়লো। অবচেতন মনে পাতাটি চিবতে লাগলেন এবং সেই ভেষজ পাতার গুণে শরীর থেকে বিষক্রিয়া বিদায় নিল, পরিপূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠলেন তিনি।

চীনারা দাবি করে, সেই পাতাটি ছিল মূলত চা পাতা। আর এভাবেই হয় সর্বপ্রথম চা এর আবিষ্কার। কিন্তু সত্যি বলতে এটি নিছক গল্প মাত্র। বৈজ্ঞানিক মতে, বিষক্রিয়া কমানোর কোনো ক্ষমতা চায়ের নেই। কিন্তু গল্পটি থেকে বোঝা যায়, প্রাচীনকাল থেকেই চীনে চায়ের কদর কত বেশি! তখন চায়ের কাঁচা পাতা ব্যবহার হতো ওষুধ হিসেবে।

চীনে প্রায় ছয় হাজার বছর আগে চায়ের চাষ শুরু হয়। আরও সুনির্ধারিত ভাবে বলতে গেলে মিশরের ফারাওরা যখন গিজা পিরামিড তৈরি করেন, তারও দেড় হাজার বছর আগে থেকে চীনে চায়ের চাষ হয়। চমৎকার বিষয় হলো, সেই প্রাচীন কালের চা গাছ এবং এখনকার চা গাছের মধ্যে বিন্দুমাত্র কোনো তফাৎ নেই। তবে চা খাওয়ার রীতি তখন ছিল একদমই ভিন্ন। চা তখন ব্যবহার হত এক ধরনের শাক হিসেবে।

চা খাদ্য থেকে পানীয়ের রূপ পায় মাত্র পনেরশো বছর পূর্বে। চীনা সম্রাট শেন নুং প্রথম এই পানীয়টির স্বাদ গ্রহণ করেছিলেন। একবার যুদ্ধের ময়দানে তিনি এবং তার সৈন্যরা একটি গাছের নীচে আশ্রয় নিয়েছিলেন। সেসময় আশপাশে অনেক চা গাছ ছিল। সৈন্যরা যখন পানি ফুটাচ্ছিল তখন কয়েকটি চা পাতা পড়ে যায় পানির মধ্যে। কিছুক্ষণ পর পানির রং বদলে সুঘ্রাণ বেড়িয়ে আসে। সেখান থেকে তৈরি হয় চা এবং এরপরই চা সর্বাধিক ব্যবহৃত পানীয়তে পরিণত হয়েছে।

পানীয় হিসেবে চায়ের প্রস্তুত প্রণালীর ওপরও চলে দীর্ঘদিন গবেষণা। চা পাতাকে তাপ দিয়ে এক বিশেষ ধরনের কেক তৈরি করে, সেটিকে পাউডারের মত চূর্ণ করে গরম পানির সঙ্গে মিশিয়ে মো নামের এক ধরনের পানীয় তৈরির সংস্কৃতি চালু হয়। খুব অল্প সময়ের মধ্যেই চায়ের জনপ্রিয়তা পুরো চীনে ছড়িয়ে পড়ে। ফলে, চীনে একটি স্বতন্ত্র চা সংস্কৃতি গড়ে ওঠে। এমনকি গল্প ও কবিতার বিষয় হিসেবে চা স্থান পায়। চিত্রশিল্পীদের জন্য চা একটি শিল্পমাধ্যম হয়ে দাঁড়ায়। চায়ের উপর ফেনা তৈরি করে তারা অসাধারণ সব চিত্রকর্ম তৈরি করতেন, অনেকটা এখনকার কফির ওপরে যেমন ক্রিমআর্ট দেখা যায় তেমনটা।

চীন থেকে জাপানে আসে চা। খ্রিস্টীয় নবম শতকে এক জাপানী সন্ন্যাসী সর্বপ্রথম জাপানে চা গাছ নিয়ে আসেন। চায়ে জাপানীরা এতই মজে গিয়েছিল যে তারা নিজস্ব চা উৎসবের আয়োজন করে। চতুর্দশ শতাব্দীতে মিং রাজবংশের শাসনামলে চীনের সেরা তিন রপ্তানি পণ্য ছিল পোর্সেলিন, রেশম ও চা।

ষোড়শ শতকে ডাচরা প্রচুর পরিমাণে চীন থেকে চা নিয়ে আসে ইউরোপের ব্যাপক প্রচলন শুরু হয়। পৃথিবীব্যাপী চায়ের ব্যাপক বিস্তৃতির জন্য অনেকেই একজন পর্তুগিজ নারীকে কৃতিত্ব দেন, তিনি রানি ক্যাথেরিন অব ব্রাগানজা। রানি ক্যাথেরিন ছিলেন চায়ের অসম্ভব ভক্ত। ১৬৬১ সালে তার সঙ্গে ব্রিটেনের রাজা দ্বিতীয় চার্লসের বিয়ে হয়। এবং ব্রিটিশ রাজপরিবারে চায়ের প্রবেশ ঘটে।

এরপর বিশ্বব্যাপী ব্রিটিশরা বিশাল উপনিবেশ সৃষ্টি করার পাশাপাশি সেসব স্থানে চায়ের প্রচলনও ঘটায়। ব্রিটিশরা প্রথমে রুপার বিনিময়ে চীন থেকে চা নিয়ে আসতো। বঙ্গ প্রদেশে কালো চায়ের চাষ ব্রিটিশ শাসনামলের সময় শুরু হয়েছিল। ইউরোপীয় ব্যবসায়ীরা ১৮৪০ সালে এই উপমহাদেশের সর্বপ্রথম চা বাগান বন্দর নগরী চট্টগ্রামে প্রতিষ্ঠা করে, যখন কলকাতা বোটানিক্যাল গার্ডেন থেকে চীনা চায়ের গাছ এনে চট্টগ্রাম ক্লাবের পাশে রোপণ করা হয়। বাংলাদেশে চায়ের উৎপাদন শুরু ১৮৪৩ সালে। চট্টগ্রামের কর্ণফুলী নদীর তীরে প্রথম চা তৈরি এবং পান করা হয়। বাণিজ্যিকভাবে প্রথম চা চাষ শুরু হয় ১৮৫৭ সালে সিলেটের মালনীছড়া চা বাগানে।

২১ মে আন্তর্জাতিক চা দিবস পালন করা হলেও বাংলাদেশের জাতীয় চা দিবস হচ্ছে ৪ জুন। যদিও প্রথমে ১৫ ডিসেম্বর ছিল বিশ্ব চা দিবস। ২০০৫ সালে, চা উৎপাদনকারী দেশগুলো আন্তর্জাতিক চা দিবস উদযাপনের জন্য একত্রিত হয়। এই দেশগুলো হলো শ্রীলঙ্কা, নেপাল, ইন্দোনেশিয়া, কেনিয়া, মালয়েশিয়া এবং উগান্ডা। ২০১৯ সালে, চা সংক্রান্ত আন্তঃসরকারি গোষ্ঠী ২১ মে আন্তর্জাতিক চা দিবস উদযাপনের সিদ্ধান্ত নেয়।

বিশ্বের এই দ্বিতীয় সর্বাধিক ব্যবহৃত পানীয়ের পুষ্টিগত গুরুত্বের প্রতি সচেতনতা বাড়াতে জাতিসংঘের উদ্যোগে এ দিবসটি পালিত হচ্ছে। কিন্তু বাংলাদেশে এ দিবসটি উদযাপনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে চা-শিল্পে জাতির পিতার অবদান এবং চা বোর্ডে যোগদানের তারিখকে স্মরণীয় করে রাখার লক্ষ্যে।

সূত্র: jagonews24

সর্বশেষ: