রোববার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১

উল্লাপাড়া উপজেলায় গিয়ে মৌ চাষে সফল সাইফুল

উল্লাপাড়া উপজেলায় গিয়ে মৌ চাষে সফল সাইফুল

মৌ চাষের স্বপ্ন ছিলো কৃষক মো. সাইফুল ইসলামের। সেই স্বপ্ন পুরনে চট্টগ্রামের মিরসরাই উপজেলা থেকে সিরাজগঞ্জ জেলার উল্লাপাড়া উপজেলায় গিয়ে হাতে কলমে শিখে আসেন মৌ চাষ। সেখান থেকে মৌ চাষ শিখে নিজের গ্রামে এসে সরিষার মৌসুমে বসান একটি মৌ বাক্স। গত বছর সেই বক্স থেকে ২০ কেজি মধু সংগ্রহ করেন তিনি। গুণ-মান ভালো হওয়ায় তার উৎপাদিত সেই মধু গ্রামেই বিক্রি হয়ে যায়। প্রথমবার মৌ চাষে সফল হয়ে এ বছর আরো ব্যাপক আকারে মধু উৎপাদন শুরু করেছেন তিনি। মৌ চাষ করে সফলতার পথে এগিয়ে যাওয়া কৃষক সাইফুল ইসলাম মিরসরাই উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের পাল গ্রামের বাসিন্দা।

শুক্রবার দুপুরে উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের পাল গ্রামে গিয়ে দেখা যায় কৃষক সাইফুল ইসলাম সরিষা খেতের পাশে বসানো একটি মৌ বাক্সের পরিচর্যা করছেন। সরিষা খেতে মৌমাছিদের মধু আহরণের দৃশ্য দেখা যায় সেখানে।

তার এই শখের মৌ চাষের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি জানান,অনেকদিনের স্বপ্ন থেকে মৌমাছি পালন শুরু করেছিলাম। মৌ চাষের বিষয়ে ভালভাবে জানতে গিয়েছিলাম সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায়। প্রশিক্ষণ নিয়ে সেখান থেকেই বাক্স ও মৌমাছি সংগ্রহ করি। প্রথমবার একটি বাক্সে পরিক্ষামূলক মৌ চাষ করে সফল হয়েছি আমি। তাই নিজে ৩ একর জমিতে সরিষা চাষ করে তাতে ২ টি বাক্স বসিয়েছি। এরিমধ্যে গত দুই মাসে বাক্স দুটি থেকে ১৫ কেজি মধু সংগ্রহ হয়েছে। এবার ১ হাজার ৫০০ টাকায় প্রতি কেজি মধু বিক্রি করেছি। সব কিছু ঠিক থাকলে সরিষার পর আমের মুকুলের মৌসুম পর্যন্ত আরো ৩০-৪০ কেজি মধু সংগ্রহ করা যাবে। সরকারি সহযোগিতা পেলে আগামি মৌসুমে এই মাঠে আরো মৌ চাষ বাড়ানোর পরিকল্পনা আছে।
মৌ চাষে সফল দুর্গাপুর ইউনিয়নের পাল গ্রামের কৃষক সাইফুল ইসলামের বিষয়ে জানতে চাইলে মিরসরাই উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রঘুনাথ নাহা বলেন, মিরসরাইয়ে এখনো কোথাও বাণিজ্যিক ভাবে তেমন মৌ চাষ করা হয় না। প্রশিক্ষণ দিয়ে মাঠ পর্যায়ে কৃষকদের মৌ চাষে আগ্রহী করার চেষ্টা চলছে। মৌ চাষ করে কৃষক সাইফুল ইসলাম সাফল্য পেয়েছেন। সম্প্রতি তার মৌ চাষ প্রকল্প পরিদর্শন করে চাষ বাড়াতে এ বছর তাকে একটি মৌ বাক্স দিয়ে সহযোগিতা করছি আমরা।

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

সর্বশেষ: