সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১

লাউ চাষে লাভবান লালমাইয়ের চাষিরা!

লাউ চাষে লাভবান লালমাইয়ের চাষিরা!

সারাদেশে কুমিল্লার লালমাইয়ের উৎপাদিত লাউ সহ অন্যান্য সবজির ব্যাপক কদর রয়েছে। এখানকার উৎপাদিত সবজির পুষ্টিগুন খুব ভালো। বিভিন্ন ধরনের সবজির মধ্যে এটি অন্যতম। প্রতি বছরের ন্যায় এবছরও কৃষকরা এ সবজি চাষ করেছেন। এর চাষে খরচ কম, ভালো ফলন পাওয়া যায় এবং বাজারে লাউ ন্যায্য মূল্য বিক্রি করে লাভবান কৃষকরা।

জানা যায়, লালমাইয়ের পাহাড় ও সমতলে সব ধরনের সবজি উৎপাদিত হয়। তার মধ্যে লাউ চাষে কষকরা বেশি লাভবান হতে পারেন। কৃষকদের মতে, অন্যান্য সবজি থেকে অনেক লাভজনক। স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে চট্টগ্রাম শহর, ফেনী, নোয়াখালী, ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবারহ করা হয়। ফলে দিন দিন চাষির সংখ্যা বাড়ছে। এর চাষ আরো ছড়িয়ে দিতে মাঠ পর্যায়ে কৃষি কর্মকর্তারা কাজ করছেন।

লালমাই উপজেলা ঘুরে দেখা গেছে, কৃষকরা সকাল ৯ টার মধ্যে জমি থেকে ফসল তুলে বাজারের দিকে রওনা হন। তারপর বাজারে প্রতি পিস ৩৫-৪০ টাকা দরে বিক্রি করেন।

লালমাই এলাকার কৃষক মমতাজ মিয়া বলেন, এবছর আমি ৪০ শতক জমি লিজ নিয়ে চাষ করেছি। আমার ৩৪ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। ইতোমধ্যে ৮৫ হাজার টাকা বিক্রি করেছি। আরো কিছুদিন বিক্রি করতে পারবো।

একই এলাকার কৃষক মনির হোসেন বলেন, পাহাড়ি এলাকা হওয়ায় মাচাং তৈরির প্রয়োজনীয় শলাকা ও খুঁটি হাতের কাছে পাওয়া যায়। ফলে এ এলাকায় লাউ চাষের মাচাং তৈরি ও খেত পরিচর্যায় খরচ কম। গাছের রোগবালাই কম হয়। আর ফলনও বেশি পাওয়া যায়। পাশাপাশি লাউয়ের বাজারদর ভালো থাকায় আমরা লাভবান হতে পারি। পাইকার আমিনুল ইসলাম বলেন, আমি চাষিদের থেকে লাউ কিনে তা শহরের পাইকারের কাছে বিক্রি করি। বিক্রি করে আমার ভালো আয় হয়।

কুমিল্লা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কুমিল্লার উপ-পরিচালক মিজানুর রহমান বলেন, এই অঞ্চলের মাটি লাউসহ অন্যান্য সবজি চাষের খুব উপযোগী। লাউ চাষে কৃষকের খরচ কম হয়। আর এর পরিচর্যা খুবই সহজ। তাছাড়া প্রয়োজনীয় কৃষি সামগ্রী এখানে সহজলভ্য। এসব সুযোগ সুবিধাগুলো কাজে লাগিয়ে কৃষকরা লাউ চাষ করছেন। বাজারে ভালো দর থাকায় কৃষকরা লাউ বিক্রি করে লাভবান হতে পারছেন। আমরা কৃষকদের নিয়মিত পরামর্শ প্রদান করছি।

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

সর্বশেষ: