রোববার, ২৬ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

কুষ্টিয়ায় ‘ফিলিপাইন আখ’ চাষে যুবকের সাফল্য

কুষ্টিয়ায় ‘ফিলিপাইন আখ’ চাষে যুবকের সাফল্য

ফিলিপাইন- কালো আখ চাষ করে সফলতা পেয়েছেন কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার নদন্দনালপুর গ্রামের আবু শাহিন (৩৫)। মাত্র তিন বছর আগেও ব্রিটিশ টোব্যাকো কোম্পানিতে চাকরি করতেন শাহিন। চাকরির সুবাদে একবার তিনি ঝিনাইদহ জেলায় ঘুরতে গিয়েছিলেন। পথে কালো আখ ক্ষেত চোখে পড়েছিল তার। আখ ক্ষেত দেখে মনের মধ্যে কৌতূহল জন্মেছিল।

কৌতূহলের সুবাদে গাড়ি থেকে নেমে আখের স্বাদ নেন তিনি। এরপর আখ চাষে আগ্রহ হয় তার। এরপর মাত্র তিন হাজার টাকার বীজ কিনে পাঁচ শতক জমিতে শুরু করেন ফিলিপাইন আখ চাষ।

এ আখ চাষে খরচ কম, তেমন কষ্ট নেই কিন্তু লাভ বেশি। তাই তিনি চাকরি ছেড়ে শুরু করেন ফিলিপাইন আখের চাষ। এতে তার ভাগ্য বদলে যায়।

আবু শাহিন কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার নদন্দনালপুর ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের খাঁ পাড়া এলাকার নজিম উদ্দিন খাঁর ছেলে। বর্তমানে তিনি ছয় বিঘা জমিতে আখের চাষ করছেন। আখ চাষে প্রতিবছর উপার্জন করছেন লাখ লাখ টাকা।

এ বিষয়ে খাঁ পাড়ার সফল আখচাষি শাহিনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আখ চাষে বছরে একবার ফলন পাওয়া যায়। প্রতি বিঘা জমিতে প্রায় ১২ হাজার পিস ফিলিপাইন আখের চাষ করা যায়। বিঘায় বীজ, সার, শ্রমিক ও আনুষঙ্গিক খরচসহ মোট প্রায় ৪০ হাজার টাকা খরচ হয়। প্রতি পিস আখ পাইকারি ৩৫ থেকে ৪৫ বা ৫০ টাকায় বিক্রি করা হয়। আর খুচরা বাজারে ৫৫ থেকে ৬০ বা ৭০ টাকায় বিক্রি করা হয়। এতে বিঘা প্রতি জমিতে প্রায় চার থেকে চার লাখ ৮০ হাজার টাকার আখ বিক্রি করতে পারেন কৃষক। ফলে খরচ বাদ দিয়ে বছরে কয়েক লাখ টাকা লাভ করতে পারেন কৃষক।

সফল ফিলিপাইন আখচাষি আবু শাহিন বলেন, আগে ব্রিটিশ টোব্যাকো কোম্পানিতে চাকরি করতাম। চাকরির সুবাদে ২০১৭ সালে একবার ঝিনাইদহ জেলায় ঘুরতে গিয়েছিলাম। যাওয়ার পথে এক স্থানে কালো আখ দেখে অবাক হয়ে দাঁড়িয়েছিলাম। আগ্রহ হলো আখের স্বাদ নেওয়ার। খাওয়ার পর খুব ভালো লেগেছিল এবং আখ চাষে মন বসেছিল। পরে সেখান থেকে ফিরে মাত্র তিন হাজার টাকার বীজ কিনে পাঁচ শতাংশ জমিতে রোপণ করেছিলাম। চাষে খরচ কম, কষ্ট কম কিন্তু লাভ বেশি।

আবু শাহিন আরও বলেন, ২০১৮ সালে তিন বিঘা জমিতে চাষ শুরু করি। বর্তমানে ছয় বিঘা জমিতে আখের চাষ আমার। বিঘা প্রতি বছরে প্রায় ৪০ হাজার টাকা খরচ হয়। আর প্রায় চার লাখ ৮০ হাজার টাকার আখ বিক্রি করি। বর্তমানে ছয় বিঘা জমিতে বছরে প্রায় আড়াই থেকে তিন লাখ টাকার খরচ হয়। আর ২৫ থেকে ২৮ লাখ টাকার আখ বিক্রি করা হয়।

এলাকার আরেক আখ চাষি সাইদুল খাঁ বলেন, গত বছর থেকে আমিও দুই বিঘা জমিতে আখ চাষ করছি। প্রতিটি আখ ১০ থেকে ১২ ফুট লম্বা হয়। আর ৩৫ থেকে ৪০ টাকায় পাইকারি বিক্রি হয়। খুচরা বিক্রেতা জমিতে এসে আখ নিয়ে যায়।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা কৃষিবিদ দেবাশীষ কুমার দাস বলেন, কয়েক বছর আগে উপজেলায় সৌখিনভাবে আখ চাষ শুরু হয়েছিল। কিন্তু অধিক লাভজনক হওয়ায় বর্তমানে বাণিজ্যিকভাবে চাষ হচ্ছে। দিনে দিনে কৃষকদের আগ্রহ বাড়ছে।

আলোকিত সিরাজগঞ্জ