• শনিবার   ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||

  • আশ্বিন ৯ ১৪২৮

  • || ১৭ সফর ১৪৪৩

অভিষেকেই ইউনাইটেডকে রাঙালো রোনালদো

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১  

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে ফেরাটা দারুণভাবে স্মরণীয় করে রাখলেন পর্তুগীজ সুপারস্টার ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। শনিবার ওল্ড ট্রাফোর্ডে নিউক্যাসলকে ৪-১ গোলে উড়িয়ে দেবার ম্যাচটিতে রোনালদো করেছেন জোড়া গোল। এর মাধ্যমে ইউনাইটেডের জার্সি গায়ে রোনালদোর নামের পাশে ১২০ গোল যোগ হলো।

১২ বছর আগে ওল্ড ট্রাফোর্ড ছেড়ে রিয়াল মাদ্রিদে পাড়ি জমানোর পর পুনরায় ইউনাইটেডের হয়ে এটাই তার প্রথম গোল। বড় এই জয়ে ওলে গানার সুলশারের দল ৪ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবিলের শীর্ষে উঠে এসেছে। যদিও প্রত্যাশার থেকে ম্যাচটিকে কঠিন করে তুলেছিল সুলশারের শিষ্যরা। 

প্রথমার্ধের ইনজুরি টাইমে রোনালদোর গোলে এগিয়ে যাবার পর জেভিয়ার ম্যানকুইলোর গোলে নিউক্যাসল সমতায় ফিরে। এরপর ৬২ মিনিটে আবারো স্বাগতিকদের এগিয়ে দেন রোনালদো। ব্রুনো ফার্নান্দেস ম্যাচ শেষ হওয়ার ১০ মিনিট আগে দারুন এক দুরপাল্লার শটে ইউনাইটেডের জয় নিশ্চিত করেন।  স্টপেজ টাইমে জেসি লিঙ্গার্ডের গোলে বড় ব্যবধানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে ইউনাইটেড।

রোনালদোর দলত্যাগের পর ২০১৩ সালে ক্লাবের সবচেয়ে সফল কোচ এ্যালেক্স ফার্গুসন অবসরে যাবার পর থেকে ইউনাইটেড গত আট বছরে কোন প্রিমিয়ার লিগ ও চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা জিততে পারেনি। 

রোনালদো ফিরে আসার পর ওল্ট ট্রাফোর্ডে কাল ৭৪ হাজার সমর্থকের উপস্থিতিতে যে পরিবেশ তৈরী হয়েছিল তা অনেক বছর দেখা যায়নি। ৩৬ বছর বয়সী রোনালদোকে ঘিড়ে ম্যাচ শুরুর আগে থেকেই সকলের মধ্যে বাড়তি উত্তেজনা কাজ করেছে। 

সুলশারের দলে আগে থেকেই শক্তিশালী আক্রমনভাগকে বাড়তি অনুপ্রেরণা যুগিয়েছে রোনালদোর দলভূক্তি। জেডন সানচো ও ম্যাসন গ্রীনউডের সঙ্গে আক্রমনভাগে ছিলেন রোনালদো। মধ্যমাঠ থেকে তাদেরকে যথার্থ সহযোগিতা করেছেন ফার্নান্দেস ও পল পগবা।

প্রথমার্ধের স্টপেজ টাইমে রোনালদো গোলে এগিয়ে যাবার আগ মুহূর্ত পর্যন্ত ওল্ড ট্রাফোর্ডের সমর্থকরা স্বস্তি পায়নি। আন্তর্জাতিক বিরতির আগে তিনটি প্রিমিয়ার লিগ ম্যাচেই গোল পাওয়া গ্রীনউডই মূলত স্বাগতিকদের প্রথম গোলের উৎস ছিলেন। তার ডিফ্লেকটেড শট কোনমতে আটকে দেন নিউক্যাসল গোলরক্ষক ফ্রেডি উডম্যান। ফিরতি বলে রোনালদো কোন ভুল করেননি।

এক গোলে পিছিয়ে থাকার পরেও নিউক্যাসল দ্বিতীয়ার্ধে বেশ স্বাচ্ছন্দ্যেই খেলা শুরু করে। তারই ধারাবাহিকতায় স্বাগতিক সমর্থকদের উল্লাসের বিপরীতে গিয়ে ৫৬ মিনিটে এ্যালান সেইন্ট-ম্যাক্সিমিনের সহযোগিতায় ম্যানকুইলো নিউক্যাসলের পক্ষে সমতা ফেরান। নিউক্যাসলের জার্সি গায়ে ৮৫ ম্যাচে এটি ম্যানকুইলোর প্রথম গোল। ৬২ মিনিটে লুক শ’র পাস থেকে শক্তিশালী শটে আবারো ইউনাইটেডকে এগিয়ে দেন রোনালদো। 

কিছুক্ষন পরেই জোয়েলিনটনের একটি শট দারুণ দক্ষতায় রুখে দেন ইউনাইটেডর গোলরক্ষক ডেভিড ডি গিয়া। 

স্পোর্টিং লিসবন থেকে ২০ মাস আগে ইউনাইটেডে যোগ দেবার পর প্রায় প্রতিটি ম্যাচেই নিজেকে প্রমান করা ফার্নান্দেস আরো একবার নিজের জাত চিনিয়েছেন। জাতীয় দলের সতীর্থ রোনালদো আসার পর ফার্নান্দেস যে একেবারেই নিষ্প্রভ হয়ে যাননি কাল যেন তারই প্রমান দিলেন। 

পল পগবার পাস থেকে ৮০ মিনিটে তার গোলটি কোন অংশেই অন্য গোলগুলোর তুলনায় খারাপ ছিলনা। লিঙ্গার্ডের চতুর্থ গোলটির যোগানদাতাও ছিলেন পগবা। ফরাসি এই তারকার কাছ থেকে বল লিঙ্গার্ড কোনাকুনি শটে ইউনাইটেডের হয়ে চতুর্থ গোলটি করেন।

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ