শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১

ইনিংস হারের শঙ্কা নিয়ে লাঞ্চ বিরতিতে বাংলাদেশ

ইনিংস হারের শঙ্কা নিয়ে লাঞ্চ বিরতিতে বাংলাদেশ

দ্বিতীয় দিন শেষে ৩৪৩ রানের লিড নিয়ে সাজঘরে ফিরেছিল ভারত। ইনিংস ঘোষণা করেছে আর কোনো রান না করেই। ফলে সকালবেলাই ব্যাট হাতে পরীক্ষায় নামতে হয় টাইগার ব্যাটসম্যানদের। সে পরীক্ষায় যেনো আবারো ফেল করার মিশনে নেমেছেন সবাই। দিনের শুরুতেই সাজঘরে ফিরেছেন চারজন। ব্যাটিং ব্যর্থতায় আবারো বাজে শুরু বাংলাদেশের। ইনিংস হারের শঙ্কায় এখন টাইগাররা। 

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বাংলাদেশের সংগ্রহ ৪ উইকেট হারিয়ে ৬০ রান। ৩৪৩ রানের চাপ মাথায় নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নামে বাংলাদেশ। নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারের প্রথম বলে যাদবের বলে বোল্ড হয়ে যান কায়েস। প্রথম ইনিংসের মতো এবারও তিনি আউট হন ৬ রানে।

সঙ্গী বিয়োগে বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি সাদমান ইসলামও। পরের ওভারেই ইশান্ত শর্মার বলে ক্লিন বোল্ড হন সাদমান। মজার বা পরিতাপের বিষয়, সাদমানও আউট হয়েছেন নিজের প্রথম ইনিংসের সমান ৬ রানেই। বল খেলেছেন সমান ২৪টি।

 

অধিনায়ক মুমিনুলের উপর দায়িত্ব ছিল বড় ইনিংস খেলার। তবে ব্যর্থ তিনিও। শামির বলে ৭ রান করেই লেগ বিফোরের ফাঁদে পরে আউট হয়ে গেলেন তিনি। মিথুন যেনো উইকেট বিলিয়েই আসলেন। শামির বলে আগারওয়ালের ক্যাচ হওয়ার আগে করেছেন ২৬ রান। 

এরপর মুশফিক আর রিয়াদ মিলে দলকে টেনে তুলতে চেষ্টা করছেন। এরই মধ্যে একবার স্লিপে ক্যাচ দিয়ে বেঁচে গেছেন মুশফিক। এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় মাত্র ১৫০ রানে অলআউট হয়েছিল বাংলাদেশ। বেশ কয়েকবার জীবন পেয়েও ৪৩ রানের বেশি করতে পারেননি মুশফিকুর রহীম। অধিনায়ক মুমিনুল হক খেলেন ৩৭ রানের ইনিংস। এছাড়া আর কেউই তেমন কিছু করতে পারেননি।

 

জবাবে ভারতের ইনিংসে মায়াঙ্ক আগারওয়াল একাই টপকে গেছেন বাংলাদেশের করা ১৫০ রানকে। ক্যারিয়ার সর্বোচ্চ ইনিংস খেলে তিনি করেছেন ২৪৩ রান। এছাড়া আজিঙ্কা রাহানে ৮৬, রবিন্দ্র জাদেজা ৬০*, চেতেশ্বর পুজারা ৫৪ রান করলে ৬ উইকেটে ৪৯৩ রান করে ইনিংস ঘোষণা করে তারা।

 

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

সর্বশেষ: