• মঙ্গলবার   ৩১ জানুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ১৮ ১৪২৯

  • || ১০ রজব ১৪৪৪

মুমিনের জীবনের উদ্দেশ্য সম্পর্কে কোরআনে আল্লাহ যা বলেছেন

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ৮ ডিসেম্বর ২০২২  

‘রহমানের বান্দা তারা, যারা ভূমিতে নম্রভাবে চলাফেরা করে এবং অজ্ঞলোক যখন তাদেরকে লক্ষ্য করে (অজ্ঞতাসুলভ) কথা বলে, তখন তারা শান্তিপূর্ণ কথা বলে।’ -(সুরা : আল ফুরকান, আয়াত- ৬৩)

কোরআনের ইবাদুর রহমান তথা রহমানের বান্দা বলার মাধ্যমে যে দিকে ইঙ্গিত করা হয়েছে তাহল, সকল মুসলমানের জীবনের উদ্দেশ্য হওয়া উচিত রহমানের বান্দা হয়ে যাওয়া। মানুষ আল্লাহর বান্দা হয়ে যাবে, এটা ছাড়া তার আর কোনো কিছু চাওয়া-পাওয়ার থাকবে না- সবার জীবনের একমাত্র উদ্দেশ্য এমন হওয়া উচিত।

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সম্পর্কে কোরআনে শাহিদ (সাক্ষী), বাশীর (সুসংবাদ দানকারী), নাযীর (সতর্ককারী), সিরাজ (আলোকিত প্রদীপ) ইত্যাদি বিভিন্ন বৈশিষ্ট্য বর্ণনা করা হয়েছে। তাকে সমগ্র জগতের জন্য রহমত আখ্যায়িত করা হয়েছে। কিন্তু যখন আল্লাহ তায়ালা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে মেরাজে নিয়ে গেলেন তখন তার ব্যাপারে বান্দা শব্দ ব্যবহার করেছেন।

ইরশাদ হয়েছে, সেই সত্ত্বা কত পবিত্র যিনি তাঁর বান্দাকে রাতারাতি মসজিদুল হারাম থেকে মসজিদুল আকসায় নিয়ে গিয়েছেন। -(সূরা বনী ইসরাইল, আয়াত ১)- এর মাধ্যমেব বুঝা যায় মুমিন জীবনের সব থেকে বড় উদ্দেশ্য আল্লাহর বান্দা হওয়া।

বান্দা হওয়ার কি অর্থ

বান্দা হওয়ার অর্থ হচ্ছে, নিজের ইচ্ছাকে মালিকের ইচ্ছার অনুগামী করে দেয়া। মালিক যা চান আমি তাই করি। মালিক যদি চান, আমি এখন নামাজ পড়বো তাহলে আমি এখন নামাজ পড়বো। তিনি যদি চান আমি এখন পরিবার-পরিজনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবো তাহলে আমি তাদের সাথে সাক্ষাৎ করবো।

বলা যেতে পারে সমাজে অনেকে থাকে কর্মচারী, যিনি বিশেষ কোনো কাজের জন্য বা নির্দিষ্ট কিছু সময়ের জন্য কাজ করেন। যেমন বিশেষ কোনো কাজের জন্য একজন কর্মচারী রাখা হল। তাকে বলে দেয়া হল, এতটা থেকে এতটা পর্যন্ত এটি তোমার কাজ। তোমার আর কোন কাজ নেই। যেমন চৌকিদারি করা, পাহারাদারি করা। কাউকে এই কাজের জন্য রেখে দেয়া হল। ওই সময়ে তার আর কোনো কাজ থাকবে না।

অথবা এমনও হতে পারে যে কাউকে নির্দিষ্ট কিছু সময়ের জন্য নিযুক্ত করা হল। তার আর কোন কাজ নেই। তার কাজ নির্দিষ্ট একটা সময় পর্যন্ত মনিবের কাছে বসে থাকা। তাকে বলে দেওয়া হল, তুমি ১২ ঘণ্টা আমার কাছে বসে থাকবে। আমি যে কাজ করতে বলব সেই কাজ করবে। ১২ ঘণ্টা পর তুমি স্বাধীন। তাহলে ১২ ঘণ্টা পর সে স্বাধীন। ওই সময়ের পর তার থেকে আর কোনো কাজ নেয়া যাবে না৷

বিপরীতে যে ব্যক্তি গোলাম বা বান্দা হয়, মালিকের হুকুমেই তার সারা জীবন কাটাতে হয়। তার কোনো নির্দিষ্ট সময় নেই। তার কোনো নির্দিষ্ট কাজও নেই। তাকে ২৪ ঘণ্টা সব কাজের জন্য প্রস্তুত থাকতে হয়। যদি মালিক বলে পায়খানা পরিষ্কার করো তাহলে সে তা পরিষ্কার করবে। যদি মালিক বলে, আমি তোমাকে অমুক জায়গায় শাসক বানিয়ে দিচ্ছি। তুমি সেখানে শাসন করো। তাহলে সে শাসন করবে। ইসলামের ইতিহাসে কত গোলাম অতিবাহিত হয়েছে যারা মালিকের হুকুমে দেশে শাসন করেছেন।

বান্দা এমন হবে

বান্দা এমন হবে যে, যখন নামাজের হুকুম হবে, তখন সে নামাজ পড়বে। যখন হুকুম হবে, এখন নামাজ পড় না তখন সে নামাজ পড়বে না। সূর্য ওঠার পরপর নামাজ পড়া নিষেধ। তখন সে নামাজ পড়বে না। যখন হুকুম হবে, খাওয়া বন্ধ কর তখন সে খাওয়া পান করা বন্ধ রাখবে। যখন হুকুম হবে, ইফতার কর তখন জলদি জলদি ইফতার করবে। তখন দেরি করবে না। হাদীসে তা’জীল অর্থাৎ ইফতার তাড়াতাড়ি করার কথা এসেছে। -(মুসলিম হাদিস ২৩৫৪)

ইলম অর্জন করা অনেক ফজিলতের কাজ। কিন্তু বাড়িতে অসুস্থ মা-বাবা থাকলে তাদের খেদমত বেশি জরুরি। তাদের পাশে খেদমত করার লোক না থাকলে ফরজে আইন নয় এমন ইলম অর্জন করতে যাওয়া গুনাহের কাজ।

একবার এক সাহাবী রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কাছে এসে বললেন, হে আল্লাহর রাসূল, হিজরতের বাইয়াত নিতে এসেছি। বাড়িতে মা বাবাকে ক্রন্দনরত অবস্থায় রেখে এসেছি। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, যাও, ঘরে ফিরে যাও। তাদের মুখে হাসি ফুটাও যেভাবে তাদের চোখ থেকে অশ্রু ঝরিয়েছ। -(আবু দাউদ, হাদীস ২৫২৮)

অনুবাদ: এনাম হাসান জুনাইদ

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ