বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

উন্মুক্ত হলো সোনা দিয়ে তৈরি পেলের সমাধি

উন্মুক্ত হলো সোনা দিয়ে তৈরি পেলের সমাধি

একটি প্রবাদ আছে, কীর্তিমানের মৃত্যু নেই। আসলেই কিংবদন্তিরা কখনো মরেন না, কেবল চোখের আড়াল হন। ভক্ত-অনুরাগীদের মাঝে সবসময় বেঁচে থাকেন তারা। তেমনই একজন ফুটবল সম্রাট পেলে।

গত বছরের ২৯ ডিসেম্বর ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াই করে ৮২ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন ব্রাজিল কিংবদন্তি। প্রয়াণের পর তাকে ব্রাজিলের সান্তোসে অবস্থিত ইকিউমেনিকাল মেমোরিয়ালে সমাধিস্থ করা হয়।

এর প্রায় পাঁচ মাস পর জনসাধারণের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে ফুটবলের কালো মানিকের সমাধিস্থল। মঙ্গলবার (১৬ মে) পেলের সমাধিস্থল মেমোরিয়াল নেক্রোপাল একুমেনিকায় ভিড় জমান পরিবারের সদস্য থেকে শুরু করে ভক্ত-সমর্থকরা।  

সমাধিস্থলে ঢোকার পথে ভক্তদের জন্য ‘ও-রেই’ বা রাজা নামে পরিচিত পেলের দুটি স্বর্ণখচিত ভাস্কর্য স্থাপন করা হয়েছে। পেলের দেহাবশেষ কৃত্রিম ঘাসে আচ্ছাদিত একটি ২০০ বর্গমিটারের (২ হাজার বর্গফুটের চেয়েও বেশি) বড় কক্ষের মাঝখানে বড় ও স্বর্ণের তৈরি একটি কাঠামোর ভেতর রাখা হয়েছে।

পেলের দেহাবশেষ ধারণকারী সোনালী কাঠামোর ওপর একটি ক্রুশ রাখা হয়েছে। কাঠামোর ওপর কালো রঙে খোদাই করে তার গোল ও মুষ্টিবদ্ধ হাত উঠিয়ে উদযাপন করার দৃশ্যটিকে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। পুরো কক্ষে ফুটবল স্টেডিয়ামে তার ভক্তদের ছবি সম্বলিত ওয়ালপেপার দিয়ে সাজানো হয়েছে।

অবকাশকেন্দ্রের মতো এই সমাধিস্থলে একটি গাড়ির যাদুঘরও আছে। পেলের ১ হাজারতম গোলটিকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য ১৯৭৪ সালে গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান মার্সিডিজ বেনজ তাকে একটি এস-২৮০ গাড়ি উপহার দেয়, যা এই যাদুঘরে সংরক্ষিত আছে।

পৃথিবীর একমাত্র ফুটবলার হিসেবে তিনটি বিশ্বকাপ জয়ের (১৯৫৮, ১৯৬২ ও ১৯৭০) কীর্তি রয়েছে পেলের। দুই দশকের বেশি সময় ধরে সান্তোস, নিউইয়র্ক কসমস ও ব্রাজিল জাতীয় দলের হয়ে মাঠ মাতিয়েছেন। ২ দীর্ঘ ক্যারিয়ারে ১ হাজার ২৮১টি গোল করে বিশ্বরেকর্ড সৃষ্টি করেন। অবশ্য গোল নিয়ে বিতর্কও রয়েছে। 

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

সর্বশেষ: