• শনিবার   ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||

  • আশ্বিন ৯ ১৪২৮

  • || ১৭ সফর ১৪৪৩

‘বঙ্গবন্ধু হত্যায় জিয়ার সম্পৃক্ততার প্রমাণ জনসম্মুখে আসছে’

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ১৩ আগস্ট ২০২১  

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যাকাণ্ডের পেছনে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের সম্পৃক্ততা দিনের আলোর মতো স্পষ্ট বলে দাবি করেছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। এ ব্যাপারে সাক্ষ্য-প্রমাণ কমিশনের মাধ্যমে জনসম্মুখে প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রী। বৃহস্পতিবার গুলশানে নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘যখন এ মামলার তদন্ত হয় তখন জিয়াউর রহমানকে আসামি করা হয়নি। কারণ তখন তিনি মৃত। মৃত ব্যক্তিকে আসামি করার সুযোগ নেই। বাংলাদেশের আইনে মরণোত্তর সাজা দেওয়ার কোনো বিধান নেই। আইনের বাইরে গিয়ে শুধু তামাশা করার জন্য একজনকে সাজা দেওয়া যায় না। কিন্তু এই হত্যাকাণ্ডে যে জিয়াউর রহমান জড়িত সেটার সাক্ষ্য প্রমাণ, ইনশাল্লাহ এই কমিশনের (বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের কুশীলবদের খুঁজতে কমিশন) মাধ্যমে জনসম্মুখে প্রকাশ করা হবে।’

বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনিদের ফিরিয়ে এনে আদালতের রায় কার্যকর করার ব্যাপারে শেখ হাসিনার সরকার বদ্ধপরিকর বলে আইনমন্ত্রী জানান। তিনি বলেন, ‘শুধু তার সরকার নয়, আওয়ামী লীগ যতদিন বাংলাদেশে থাকবে, বঙ্গবন্ধুর অনুসারীদের একজন বেঁচে থাকলেও হত্যাকারীদের দেশে ফিরিয়ে এনে আদালতের রায় কার্যকর করা হবে। খুনিদেরকে ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া চলছে। এ চলমান প্রক্রিয়ার ব্যাপারে বিশদ কিছু বলতে গেলে এ প্রক্রিয়ার কিছু ব্যাঘাত হবে। তবে এই ব্যাপারে সরকারের কোনো শিথিলতা নেই। খুনিদের ফিরিয়ে আনার চেষ্টা সরকার চালিয়ে যাচ্ছে।’

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের ষড়যন্ত্রকারীদের চিহ্নিত করতে তদন্ত কমিশন গঠনের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার সাক্ষ্য-প্রমাণ ও আলাপ আলোচনায় এটা স্পষ্ট হয়ে ওঠে যে, যারা হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছিলেন শুধু তারাই এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত নয়। এর পেছনে একটা ষড়যন্ত্র আছে এবং সেই ষড়যন্ত্রকারী কারা তাদেরকে অন্ততপক্ষে চিহ্নিত করে দেশের মানুষের কাছে তাদের মুখোশ উন্মোচন করা দরকার।’

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘এই ষড়যন্ত্রকারীদের চিহ্নিতকরণ প্রক্রিয়া কী হবে তা নিয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনার সাথে আলাপ আলোচনা করে একটি কমিশন গঠনের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কমিশন গঠন করার সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর বিগত ৮ মার্চ, ২০২০ থেকে করোনার মহামারি শুরু হয়েছে। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই এই কমিশনের রূপরেখা কী হবে, কমিশনের কার্যাবলী কী হবে, কমিশন কাদের দ্বারা গঠিত হবে তা দেশবাসী জানতে পাবেন।’

বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনি মুসলেম উদ্দিন ভারতে পলাতক রয়েছেন বলে গুঞ্জন রয়েছে এ সম্পর্কে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা তা যাচাই বাছাই করে দেখেছি। এখন পর্যন্ত তার কোনো সত্যতা আমরা পাইনি।’

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ