মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১

তাড়াশ পৌরসভার নির্বাচন ঘিরে উৎসাহ উদ্দীপনা

তাড়াশ পৌরসভার নির্বাচন ঘিরে উৎসাহ উদ্দীপনা

সীমানা জটিলতা, ভোটার তালিকা হালনাগাদ ও অন্যান্য কাগজপত্র ঠিক করতে দীর্ঘ ৬ বছর পর সিরাজগঞ্জের তাড়াশ নবগঠিত পৌর সভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে আগামী ১৭ জুলাই। দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হলেও নির্বাচনের কথা শুনে ভোটারদের মধ্যে অন্য রকম আনন্দ, উৎসাহ ও উদ্দীপনা বিরাজ করছে।

সূত্র জানায়, ২০১৭ সালে ৩১শে ডিসেম্বর স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে তাড়াশ পৌরসভা ঘোষণা করা হয়। প্রায় ২৮শ’ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের তাড়াশ পৌর সভার মোট ভোটার সংখ্যা ১৬ হাজার ৭১৬ জন। নারী ভোটার সংখ্যা ৮ হাজার ৫৬০ জন এবং পুরুষ ভোটার সংখ্যা ৮ হাজার ১৫৬ জন। পুরুষের চেয়ে নারী ভোটার সংখ্যা ৪০৪জন বেশি।

পৌরসভার নির্বাচনে নিয়ে তাড়াশ বাজারের চা স্টল থেকে শুরু করে হাট-বাজারসহ নির্বাচন এরিয়ার মধ্যে সর্বত্রই আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হচ্ছে তাড়াশ পৌরসভার মেয়র প্রার্থী নিয়ে। কে হবেন তাড়াশ পৌর সভার প্রথম মেয়র বা পৌর পিতা।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, তাড়াশে নবগঠিত পৌরসভা গঠনের ৬ বছর পর প্রথমবারের মত পৌর মেয়র পেতে যাচ্ছেন তাড়াশ পৌরবাসী। গত (৩১ মে) বুধবার নির্বাচন কমিশন ২ এর উপসচিব আতিয়ার রহমান পৌরসভা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার করেন। ঘোষণা অনুসারে আগামী ১৭ জুলাই তাড়াশ পৌর সভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ঘোষণার পুর্ব থেকেই সম্ভব মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা বিভিন্ন স্থানে ব্যানার, ফেস্টুন ও পোষ্টার দিয়ে ভোটারদের মন জয় করার চেষ্টা করছে।ভোটারদের সমর্থন আদায়ের জন্য তারা নিয়মিত সভা সমাবেশ, গণসংযোগ, চা-চক্কর ও আলোচনা করতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন।

এমনকি জেলা ও উপজেলার রাজনৈতিক দলের সভাপতি সাধারণ সম্পাদকসহ মনোনয়ন বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারেন এমন রাজনৈতিক নেতারা সাথে পৌরসভার নির্বাচনকে ঘিরে সম্ভব মেয়র প্রার্থীগণ নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করে চলছেন। আর ভোটারদের মধ্যে বিরাজ করছে উৎসাহ, উদ্দীপনা। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সম্ভব ১০জন মেয়রপ্রার্থী নাম জানা গেছে। তবে প্রথম পৌর নির্বাচন বলে প্রার্থীর সংখ্যা আরো বেশি হতে পারে বলে সম্ভব এক প্রার্থী জানান। দলীয় ভাবে মনোনয়ন নাকি সব স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করতে পারবে তা নিয়ে চলছে চুলছেড়া বিশ্লেষণ। সচেতন মহলের বার্তা দলীয় কোন্দল বিদ্যমান থাকায় একজনকে দলীয় ভাবে মনোনয়ন দিলে অন্যান্য তার বিপক্ষে যাওয়ার সম্ভবনা বেশি। যা তাড়াশে পূর্বের ইতিহাস তাই বলে। তাছাড়া শতাধিক কাউন্সিলর প্রার্থীরা ব্যানার, ফেস্টুন ও পোষ্টার দিয়ে ভোটারদের মন জয় করার চেষ্টা চালাচ্ছে। বসে নেই সংরক্ষিত নারী আসনের প্রার্থীরাও।

 

 

 

 

সীমানা জটিলতা, ভোটার তালিকা হালনাগাদ ও অন্যান্য কাগজপত্র ঠিক করতে দীর্ঘদিন ৬ বছর সময় পেরিয়ে গেছে। এসব কারনে নির্বাচনের জন্য পৌরবাসীকে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয়েছে। ৪টি ইউনিয়ন থেকে ভোটার কেটে তা হালনাগাদ করতে এবং সীমানা নির্ধারণ নিয়ে অভিযোগ পাল্টা অভিযোগের কারণে পৌর সভার নির্বাচন নির্ধারিত সময়ের মধ্যে করতে পারেন নাই বলে জানান তাড়াশ পৌর সচিব আশরাফুল ইসলাম ভূঁইয়া। সীমানা জটিলতার কারণে এখনও তাড়াশ সদর ও নওগাঁ ইউনিয়নে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা হয়নি।

তাড়াশ উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, তফসিল অনুসারে নবগঠিত তাড়াশ পৌরসভার নির্বাচনে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ১৮ জুন। মনোনয়নপত্র বাছাই হবে ১৯ জুন। প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ২৫ জুন এবং ভোট গ্রহণ ১৭ জুলাই। সকল কেন্দ্রে এই প্রথম বারের মত ইভিএমের মাধ্যমে ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে বলে জানান নির্বাচন পরিচালনা ২এর উপসচিব আতিয়ার রহমান।

এ ব্যাপারে তাড়াশ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও পৌর প্রশাসক মো. মেজবাউল করিম বলেন, দীর্ঘদিন পর আগামী ১৭ জুলাই ইভিএম পদ্ধতিতে তাড়াশ পৌরসভার নির্বাচনে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনকে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করতে সব ধরণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে।

 

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

সর্বশেষ: