• বৃহস্পতিবার   ০১ ডিসেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৬ ১৪২৯

  • || ০৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

সিরাজগঞ্জে সুস্বাদু খেজুরের গুড় তৈরিতে ব্যস্ত গাছিরা

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ২৪ নভেম্বর ২০২২  

চারদিকে ঘন কুয়াশা। এখনও সূর্যের দেখা মেলেনি। খেজুর গাছে লাগানো মাটির হাঁড়ি থেকে রস সংগ্রহে ব্যস্ত গাছিরা। শীত মৌসুম পুরোদমে শুরুর আগেই সিরাজগঞ্জের তাড়াশ ও রায়গঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে গুড় তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন গুড় চাষিরা। গাছ থেকে খেজুরের রস নামিয়ে তা মাটির তৈরি বিশেষ চুলায় ফুটিয়ে তৈরি করা হয় খাঁটি মানের খেজুরের গুড়। যুগ যুগ ধরে এভাবে এখানে খেজুরের গুড় তৈরি করা হচ্ছে। এ মৌসুমে এ দুটি উপজেলার অনেক গ্রামেই চোখে পড়বে চিরচেনা এমন দৃশ্য। প্রতি বছর শীত মৌসুমের শুরুতে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা গাছিরা স্থানীয় কৃষকদের কাছ থেকে খেজুরের গাছ লিজ নিয়ে এই গুড় তৈরি করেন। এখানকার তৈরি গুড় খাঁটি ও সুস্বাদু হওয়ায় স্থানীয় চাহিদা মিটিয়েও দেশের বিভিন্ন বাজারে বিক্রি হচ্ছে।

গুড় চাষি আবদুস সোবহান বলেন, ‘প্রতি বছর আমরা তাড়াশ উপজেলায় খেজুর গাছ লিজ নিয়ে রস সংগ্রহ করে গুড় তৈরি করি। বাজারে ভেজাল গুড়ের সয়লাবের পাশাপাশি সঠিক বাজারজাতকরণের অভাবে আমরা গুড়ের কাক্সিক্ষত দাম পাচ্ছি না।’

এদিকে রায়গঞ্জ উপজেলার বাকাই ও ফরিদপুর গ্রামে রাজশাহীর বাঘা উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে চাষিরা এসেছেন গাছ থেকে রস সংগ্রহ করে গুড় তৈরি করতে। কথা হয় দলের প্রধান আসাদুল হকের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘এখনও গাছ থেকে খুব একটা রস নামতে শুরু করেনি। পৌষ-মাঘ মাসে যখন পুরোদমে শীত পড়বে, তখন খেজুর গাছ থেকে আশানুরূপ রস পাওয়া যাবে। এ বছর আমরা রায়গঞ্জ উপজেলায় প্রায় এক হাজার খেজুর গাছ প্রস্তুত করেছি। এখন গাছপ্রতি এক কেজি রস পাওয়া গেলেও পৌষ-মাঘ মাসে এর চার-পাঁচগুণ রস পাব বলে আমরা আশাবাদী। ৩০ লিটার রসে চার কেজির মতো পাটালি গুড় তৈরি হয়। বর্তমানে প্রতি কেজি গুড় পাইকারি ১৪০-১৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।’

তাড়াশ উপজেলার ভোগলমান গ্রামের সেকেন্দার আলী বলেন, ‘একসময় তাড়াশ উপজেলাসহ সিরাজগঞ্জের বিভিন্ন উপজেলার গ্রামে গ্রামে মেঠোপথ ও বাড়িতে প্রচুর খেজুর গাছ দেখা যেত। এর রস ও গুড় দিয়ে তৈরি হতো পিঠা-পুলি। এখনও রয়েছে সেই ঐতিহ্য। তবে নানা কারণে এ গাছের সংখ্যা আশঙ্কাজনক হারে কমে যাওয়ায় হারাতে বসেছে বাঙালির এ ঐতিহ্য। এই গাছ রক্ষায় সরকারি উদ্যোগ নিতে হবে।’

সিরাজগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক বাবলু কুমার সূত্রধর জানান, এ বছর তাড়াশ ও রায়গঞ্জে আট সহস্রাধিক খেজুর গাছ থেকে রস সংগ্রহ করে গুড় তৈরি করছেন চাষিরা। শীত মৌসুম এলেই বিভিন্ন জেলা থেকে গুড় চাষিরা সিরাজগঞ্জে এসে খেজুর রস থেকে ভেজালমুক্ত সুস্বাদু গুড় তৈরি করেন। এই অঞ্চলে খেজুরের রস আর গুড়ের মান ধরে রাখতে স্থানীয় কৃষি বিভাগ থেকে গুড় চাষিদের নানা পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। 

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ