• বৃহস্পতিবার   ০১ ডিসেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৬ ১৪২৯

  • || ০৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

শাহজাদপুরে বীজ উৎপাদনে কৃষাণী মরিয়মের সাফল্য

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ২ অক্টোবর ২০২২  

শাহজাদপুর উপজেলার যমুনা তীরবর্তী সৈয়দপুর গ্রাম। ওই গ্রামের অন্যান্য সাধারণ নারীদের মতই কৃষাণী মরিয়মের রয়েছে স্বামী-সন্তান ও সংসার। সংসারের সব কাজ সামলিয়েও তিনি এখন সমাজের মডেল নারীতে পরিনত হয়েছেন। তিনি সিরাজগঞ্জ জেলার মধ্যে ২য় শ্রেষ্ট এসএমই বীজ উৎপাদন কারী ও সফল নারী উদ্যোক্তা এবং বীজ ব্যবসায়ী।

ইতোমধ্যেই তিনি এলাকায় বীজের কারিগর হিসেবে সুখ্যাতি অর্জন করেছেন। সিরাজগঞ্জের গন্ডি পেড়িয়ে সারাদেশে তার উৎপাদিত বীজ পৌঁছে যাচ্ছে এখন কৃষকের হাতে। তিনি বীজ উৎপাদন করে একজন সফল উদ্যোক্তা হিসেবেও অনেক চাষির কাছে অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত হয়ে উঠেছেন। বীজ উৎপাদন করে তিনি এখন স্বাবলম্বী। গত ৪ বছর যাবত তার উৎপাদিত উৎকৃষ্ট মানের ‘রবি সিড’ বীজ এখন দেশজুড়ে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে।    

কথা হয় কৃষণী মরিয়ম খাতুনের সাথে তিনি জানান, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর থেকে প্রথমে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে কৃষক পর্যায়ে উন্নত মানের ডাল, তেল ও মসলা বীজ উৎপাদন, সংরক্ষণ ও বিতরণ প্রকল্পের আওতায় তাকে বারি সরিষা-১৪, খেসারী এবং তিলের বীজ উৎপাদন প্রদর্শনী দেয়। এর পরের বছর পেঁয়াজ বীজ উৎপাদন প্রদর্শনী পায়। সেখান থেকে যে পরিমাণ বীজ পাই তাতে ব্যাপক লাভবান হই। সেই থেকে তার বীজ ব্যবসার হাতেখড়ি। সেই ধারাবাহিকতায় ব্যাপক উৎসাহ নিয়েই নিয়মিত ভাবে বারি সরিষা-১৪ ও ১৭, তাহেরপুরি পেঁয়াজ বীজ, খেসারী, মসুর, তিল ও ধানের বীজ উৎপাদন করছেন।

এ বছর তার উৎপাদিত বীজের মধ্যে সংরক্ষণ রয়েছে সরিষা ৫৫ মন, ডাল জাতীয় ৮০০ কেজি, তিল ৩০০ কেজি, পেঁয়াজ বীজ ৫৪ কেজি, ধানের বীজ ২৫০ মন, ও ব্রি-ধান-১০০ (বঙ্গবন্ধু ধান নামে পরিচিত) ৫০ মন। তার এসব উৎপাদিত বীজ দেশের বিভিন্ন বাজারে বিক্রি করতে নিয়ে যান। চাষিরা তার বীজ কিনে চাষে আশানুরুপ ফল পান। এ থেকে তার বীজের চাহিদা বাড়তে থাকে।

এখন প্রায় সারাদেশেই ‘রবি সিড’ বীজ পৌছে গেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ভালো মানের বীজ সর্বারোহে আমি সফল হয়েছি। বীজ উৎপাদনে তার প্রায় আড়াই থেকে ৩ লাখ টাকা উৎপাদন ব্যয় হলেও উৎপাদিত বীজ ৬ থেকে সাড়ে ৬ লাখ টাকা বিক্রি হওয়ায় প্রায় তিন লাখ টাকা লাভ হয়।  

উপজেলার জালালপুর ইউনিয়নের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. হাবিবুর রহমান ও সুবর্না ইয়াসমিন সর্বক্ষণিক ভাবে তারা মাঠে এসে পরামর্শ দিচ্ছে। তার বীজ উৎপাদনে গুনগত মান নিশ্চিত করণে গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। তার উৎপাদিত বীজ গুনগত মান ভালো থাকায় প্রতি বছরই এর চাহিদা বাড়ছে কিন্তু পর্যাপ্ত জমি না থাকার ফলে ব্যবসা বাড়াতে পারছে না। তাই সরকারি সহযোগিতা পেলে আরো বেশি লাভবান হতে পারবে বলেও কৃষাণী জানিয়েছেন।   

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার কৃষিবিদ মো. এহসানুল হক বলেন, এ এলাকার মানুষ নিজেরা বীজ রাখতে অভ্যস্ত নয়। সে জন্য এ এলাকায় ভালো বীজের পর্যাপ্ত চাহিদা রয়েছে। উন্নতমানের বীজ উৎপাদনের লক্ষে ওই ইউনিয়নের উপসহকারী কৃষি র্ককর্তারা কৃষকদের সর্বক্ষণিক মাঠে গিয়ে পরামর্শ দিচ্ছে। এতে কৃষাণী মরিয়মের বীজ উৎপাদনে গুনগত মান নিশ্চিত করণে গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

শাহজাদপুর উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ আব্দুস ছালাম বলেন, কৃষাণী মরিয়ম সিরজাগঞ্জ জেলার মধ্যে ২য় শ্রেষ্ট এসএমই বীজ উৎপাদন কারী। তিনি একজন উদ্যোমি কর্মট এবং আধুনিক কৃষাণী। কৃষক পর্যায়ে উন্নত মানের ডাল, তেল ও মসলা বীজ উৎপাদন, সংরক্ষণ ও বিতরণ প্রকল্পের আওতায় কৃষাণী মরিয়ম একটি প্রদর্শনী নিয়ে কয়েক বছর ধরে বীজ উৎপাদন করে আসছেন। দেশে ভালো বীজের চাহিদা মেটাতেই সরকারের এ উদ্যোগ। আর সরকারের এই উদ্যোগের সাথে একাত্ম হয়ে তিনি ভালো মানের বীজ উৎপাদন করে শতভাগ সফলতা অর্জন করেছেন এবং তিনি এখন সফল উদ্যোক্তা। আমি তার সাফল্য কামনা করি।

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ