• বৃহস্পতিবার   ০৬ অক্টোবর ২০২২ ||

  • আশ্বিন ২১ ১৪২৯

  • || ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

সিরাজগঞ্জে ‘পলিনেট হাউজে’ সবজি চাষ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ২১ সেপ্টেম্বর ২০২২  

সিরাজগঞ্জে পলিনেট হাউজে (গ্রীনহাউস) সবজি চাষ এবং কৃষিকাজে যান্ত্রিকীকরণ বাড়ছে। এ পদ্ধতিতে সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার একডালা গ্রামে পলিনেট হাউজে সবজি চাষ শুরু করেছেন শহিদুল ইসলাম ও উল্লাপাড়া উপজেলার ঘাটিনাতে ফজলুল হক। আধুনিক প্রযুক্তি সম্প্রসারণরে মাধ্যমে রাজশাহী বিভাগের কৃষি উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার একডালা গ্রামে ২৫ শতক জমির উপর একটি পলিনেট হাউজ স্থাপন করা হয়। বর্তমানে পলিনেট হাউজে মুলা ও ধনিয়ার আবাদ করা হয়েছে।

স্থানীয় কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, পলিনেট হাউজে উচ্চমূল্যের ফসল যেমন ক্যাপসিকাম, ব্রকলি, রকমেলন, রঙিন তরমুজ, রঙিন ফুলকপি/বাধাকপি, লেটুসসহ অন্যান্য অফসিজন সবজির পাশাপাশি চারা উৎপাদনের সুযোগ তৈরি হবে। এর ফলে সবজি চাষে যেমন বৈচিত্র্য আসবে, তেমনি অনেকেই আয়ের নতুন উৎসের সন্ধান পাবে।

পলিথিনের আচ্ছাদন থাকায় এতে সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি ভেতরে প্রবেশে বাধা পায় এবং অতি বৃষ্টি বা প্রাকৃতিক দুর্যোগেও ফসল অক্ষত থাকে।

গবেষণায় দেখা গেছে, পলিনেট হাউজে ফসলের উৎপাদন ২০ শতাংশ বাড়ে পাশাপাশি পোকামাকড়ের আক্রমণ ৭০ শতাংশ কম হয়। প্রথমিকভাবে খরচ কিছুটা বেশি হলেও এতে উৎপাদন খরচ কম হয়। আর নিরাপদ ফসল উৎপাদন সহজ হয়। পলিনেটে সুস্থ সবল চারা উৎপাদন করা যায় এবং উচ্চমূল্যের ফসল উৎপাদন করে অধিক লাভবান হওয়া যায়। এই প্রথম সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলা ও উল্লাপাড়া উপজেলারতে পলিনেট হাউজ তৈরি হয়েছে। যা দেখে শিক্ষিত বেকার এবং আগ্রহীরা উদ্বুদ্ধ হচ্ছেন।

এ বিষয়ে একডালা গ্রামের কৃষক শহিদুল ইসলাম বলেন, কৃষি বিভাগের সহায়তায় আমি প্রথম এই পদ্ধতিতে চাষ শুরু করি। প্রথমে একটু শঙ্কায় ছিলাম যে, এই পদ্ধতিতে আবাদ করে লাভ হবে কিনা। কিন্তু আবাদ শুরুর পর দেখি, এ পদ্ধতি বেশ ভালো। সারা বছর এখানে বিভিন্ন ধরনের ফসল চাষ করে লাভবান হতো পারব।

উল্লাপাড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সুবর্না ইয়াসমিন সুমী বলেন, এই পদ্ধতিতে কৃষকরা সারা বছর সবজি চাষ করতে পারবে। এত তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে সব ধরনের সবজি চাষ করে কৃষক আর্থিকভাবে লাভবান হবে। তিনি আরো বলেন, কৃষি বিভাগ থেকে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পরমর্শ দেওয়া হচ্ছে। এই পদ্ধতির সুবিধা দেখে এলাকার অনেক কৃষক আগ্রহী হয়ে উঠছেন।

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. রোস্তম আলী বলেন, পলিনেট হাউজ প্রযুক্তির মাধ্যমে ভারী বৃষ্টিপাত, তাপ, কীটপতঙ্গ, ভাইরাসজনতি রোগের মতো প্রতিকূল পরিস্থিতি থেকে নিরাপদ শাকসবজি ও ফলসহ কৃষি উৎপাদন করার এক আধুনিক পদ্ধতি।

অসময়ে সবজি চাষের জন্য পলিনেট হাউজ দেশে আধুনিক কৃষি প্রযুক্তির নতুন সংযোজন। এর মাধ্যমে শীতকালীন সবজি যেমন সহজেই গ্রীষ্মকালে উৎপাদন করা যায়, তেমনি গ্রীষ্মকালের সবজিও শীতে উৎপাদন করা যায়।

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ