• বৃহস্পতিবার   ০৬ অক্টোবর ২০২২ ||

  • আশ্বিন ২১ ১৪২৯

  • || ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

কামারখন্দে দূর্গাপূজাকে ঘিরে নিরাপত্তার প্রস্তুতি প্রসাশনের

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ২১ সেপ্টেম্বর ২০২২  

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মধ্যে হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম প্রধান উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে উৎসবমুখর পরিবেশ তৈরি হয়েছে পাশাপাশি ব্যস্ত সময় পার করছেন সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ উপজেলার পালপাড়ার প্রতিমা তৈরীর কারিগরেরা। খড়, কাঠ, সুতা আর মাটি দিয়ে নিপুণ হাতে তৈরী করছেন দুর্গা সহ নানা প্রতিমা। পূজা যতই ঘনিয়ে আসছে শিল্পীদের ব্যস্ততা ততটাই বাড়ছে। তবে প্রতিমা তৈরীর উপকরনের দাম বাড়লেও বাড়েনি প্রতিমার দাম এমনটাই মনে করেন প্রতিমা কারিগরেরা।

সনাতন ধর্মালম্বী উজ্জ্বল কুমার চক্রবর্তী জানান, এবছর দেবী দুর্গা আসছেন গজে (হাতি) চড়ে যাবেন নৌকায় চড়ে। দেবীর আগমনে বিশ্বহবে শান্তিময়, অশুভ শক্তিকে বিনাশ করে উদয় হবে শুভ শক্তির এমনটাই প্রত্যাশা তাদের। তাদের বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। আগামী পহেলা অক্টোবর ষষ্ঠী পূজার মধ্য দিয়ে এবারের দুর্গাপূজার মূল আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। সে হিসেবে ৪ অক্টোবর বিজয়া দশমীর মধ্যে দিয়ে শেষ হবে এবাবের দুর্গোৎসব।

উপজেলার ভদ্রঘাট পালপাড়া ঘুরে দেখা গেছে, পালপাড়ায় প্রতিমা তৈরীতে চলছে মহাকর্মযজ্ঞ। যেন দম ফেলার ফুসরত নেই প্রতিমা তৈরীর শিল্পীদের। পুরুষদের পাশাপাশি প্রতিমা তৈরীর কাজে সহায়তা করছে বাড়ীর নারী শিল্পীরাও। কেউ কেউ খড়, কাঠ, সুতা দিয়ে প্রতিমার কাঠামো তৈরী করছেন কেউবা নিপুণ হাতে ফুটিয়ে তুলছেন দুর্গা, লক্ষী, স্বরস্বতী প্রতিমা। প্রতিমার কাঠামো এবং মূলকাজ শেষে এখন চলছে রঙের কাজ।

ভদ্রঘাট পালপাড়ার প্রতিমা তৈরির কারিগর শ্রীকান্ত পাল ও দিলীপ পাল জানান, কালের বিবর্তনে আগের মত আর মাটির জিনিসপত্র ব্যবহার হয় না। পালপাড়ায় প্রায় ২০০ প্রতিমা তৈরি হচ্ছে। উপজেলার চাহিদা মিটিয়ে এই প্রতিমাগুলো উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় যাবে। প্রতিটি প্রতিমা ৩০ হাজার থেকে ৮০ হাজার টাকায় বিক্রি হবে।

উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি প্রভাত কুমার দাস জানান, এ বছর উপজেলার ২২টি পূজা মন্ডপে অনুষ্ঠিত হবে শারদীয় দুর্গাপূজা। এবারের দূর্গাপূজা উৎসবমুখর করতে পূজা মন্ডপগুলোতে সকল প্রকার প্রস্তুতি সম্পন্ন করার কাজ চলছে।

কামারখন্দ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ হাবিবুল্লাহ জানান, পূজা উদযাপন উপলক্ষে আমাদের সর্বাত্মক নিরাপত্তা প্রস্তুতি খুবই ভালো। কোন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা যেন ঘটাতে না পারে তার জন্য ইতিমধ্যে ভদ্রঘাট পালপাড়ায় সন্ধ্যা ছয়টা থেকে সকাল আটটা পর্যন্ত নিয়মিত প্রতিমা পাহারার ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রতিমা প্রতিটা মন্ডবে ওঠার আগ পর্যন্ত নিয়মিত এই পাহারা চলবে এবং প্রতিমা প্রতিটা মন্ডবে ওঠা থেকে বিসর্জন পর্যন্ত প্রতিটা মন্ডবে নিরাপত্তা থাকবে একাধিক স্তরের।

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ