• বুধবার   ২৯ জুন ২০২২ ||

  • আষাঢ় ১৫ ১৪২৯

  • || ২৯ জ্বিলকদ ১৪৪৩

৭ মার্চের ভাষণ প্রতিযোগিতায় রাজশাহী বিভাগে প্রথম চৌহালীর রিদওয়ান

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ৯ ফেব্রুয়ারি ২০২২  

বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ বিষয়ক প্রতিযোগিতায় রাজশাহী বিভাগে প্রথম হয়েছে সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলার রিদওয়ান আহমাদ। রিদওয়ান চৌহালী উপজেলার রেহাই কাউলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর শিক্ষার্থী। তার মা ওই স্কুলের সহকারী শিক্ষিকা রহিমা ও বাবা উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের নেতা মাহমুদুল ইসলাম। তাদের বাড়ি উপজেরার ঘোড়জান ইউনিয়নের খাষ ধলাই গ্রামে।

৬ ফেব্রুয়ারি প্রাথমিক শিক্ষা রাজশাহী বিভাগীয় উপপরিচালক আবুল কালাম আজাদ তার হাতে সনদ তুলে দেন। মঙ্গলবার বিকেলে এ তথ্য জানান রিদওয়ানের মা রহিমা। জানা যায়, রাজশাহী বিভাগের মধ্যে একমাত্র দুর্গম উপজেলা চৌহালীর স্কুল ছাত্র রিদওয়ান। সে সাড়ে ৩ বছর বয়সে টেলিভিশনে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ শুনে নিজে নিজে বলার চেষ্টা করে। পরে ভাষনের প্রতি তার আগ্রহ দেখে বাবা মায়ের প্রায় এক বছর চেষ্টার পর সে পুরো ভাষন মুখস্ত করে।

২০১৬ সালের বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে রিদওয়ান মঞ্চে প্রথম বঙ্গবন্ধুর ভাষন দেয়। অবিকল সেই ভাষনের মত করে তার মুখ ও হাত নারিয়ে বক্তব্য দেয়াকে সবাই প্রশংসা করে। পরে তৎকালীন ইউএনও আবু তাহিরের অনুপ্রেরণায় রিদওয়ান বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ২২ মিনিটের ভাষন ঠোটস্থ করে ফেলে। পরবর্তীতে বিভিন্ন সময় উপজেলা ও জেলা পর্যায়ের ভাষন প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অর্জন করে। সর্বশেষ রাজশাহী বিভাগীয় পর্যায়ে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ বিষয়ক প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে বিভাগের মধ্যে প্রথম হয় রিদওয়ান আহমদ।

এবিষয়ে রিদওয়ানের বাবা মাহমুদুল ইসলাম বলেন, আমার ছেলে ৪ বছর বয়সে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের পুরো ভাষন মুখস্ত বাংলায় বলেছে। এখন সেই ঐতিহাসিক ২২ মিনিটের এই বক্তব্যটি ইংরেজীতেও বলতে পারে। তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে নিয়ে রিদওয়ান যেন আইন পেশায় পড়াশোনা করে দেশও জাতির খেতমত করতে পারে। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর কোন অনুষ্ঠানে যেন রেদওয়ানকে বক্তব্যটি দেয়ার সুযোগ দেয়া হয়।

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ