• বুধবার   ১০ আগস্ট ২০২২ ||

  • শ্রাবণ ২৬ ১৪২৯

  • || ১৩ মুহররম ১৪৪৪

প্রতিদিন ১২০০ প্লেট বিক্রি হয় দাদা বৌদি বিরিয়ানি

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ২৮ জুন ২০২২  

এই বিরিয়ানির সুনাম ছড়িয়ে পড়েছে শহর থেকে শহরে। তাই ক্রমেই বাড়ছে দাদা বৌদির বিরিয়ানির ভক্ত। শহরতলির বাসিন্দা ছাড়াও কলকাতার অনেকেও এই বিরিয়ানির প্রেমে পড়েছেন।

তাতে বিক্রি এত বেড়েছে যে ছোট্ট দাদা বৌদির হোটেল ব্র্যান্ড হয়ে সুনাম কার্যত এক শহর থেকে অন্য শহরে ছড়িয়ে পড়েছে। ব্যারাকপুর থেকে তা ছড়িয়েছে সোদপুরেও। দাদা বৌদির বিরিয়ানি বিক্রি কিন্তু টেক্কা দিতে পারে তাবড় তাবড় নামকে।

দাদা বৌদি-র বর্তমান মালিক সঞ্জীব সাহা। তিনি জানান, প্রতিদিন দাদা বৌদি থেকে ১২০০ প্লেটেরও বেশি বিরিয়ানি বিক্রি হয়। চিকেন ও মাটন বিরিয়ানি মিলেই এই প্লেটের পরিমাণ। সম্প্রতি ব্যারাকপুরের দাদা বৌদি হোটেলের পাশেই শাখা খুলেছে আর্সালান বিরিয়ানি। তবে প্লেট বিক্রির সংখ্যায় দাদা-বৌদি কার্যত গোল দিয়েছে ব্যারাকপুরের ওই আর্সালানকে।

দাদা বৌদিতে প্লেট প্রতি বিরিয়ানির দাম মাটনের ক্ষেত্রে ২৫০ টাকা ও চিকেনের ক্ষেত্রে ২০০ টাকা। এই মূল্য দাদা বৌদি হোটেল অর্থাৎ স্টেশন রোড সংলগ্ন রোডের পুরোনো হোটেলটিতে। এছাড়া স্পেশাল প্লেট যেখানে দুই পিস চিকেন ও চালের পরিমাণ বেশি থাকে। তার দাম মাটনের ক্ষেত্রে ৪৭৫ টাকা ও চিকেন স্পেশাল প্লেটের ক্ষেত্রে ৩২০ টাকা।

সে হিসাবে দাদা বৌদির বিরিয়ানির প্রতিদিন বিক্রি ১২০০ প্লেট ধরা হলে ও প্রতি প্লেট চিকেন ও মাটন বিরিয়ানির দাম ২০০ টাকা ও ২৫০ টাকা হলে মোট কত টাকার বিরিয়ানি বিক্রি হয় তা সহজেই অনুমান করা যায়।

দাদা বৌদির সবচেয়ে পুরোনো বা মূল শাখাটি রয়েছে ব্যারাকপুর স্টেশন সংলগ্ন রোডেই। সঞ্জীব সাহা জানান, দাদা-বৌদি হোটেলটিই সবচেয়ে পুরোনো। সেটিকে নতুন করে আবার করা হচ্ছে। এছাড়া তিনি জানান এয়ারপোর্ট সংলগ্ন এলাকায় একটি দাদা বৌদির রেস্টুরেন্ট খোলা হচ্ছে।

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ