• শনিবার   ২৬ নভেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১২ ১৪২৯

  • || ০২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

কুমিল্লায় মাল্টা চাষে সফল প্রবাস ফেরত আনোয়ার!

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ২২ জুলাই ২০২২  

কুমিল্লার তিতাস উপজেলার বলরামপুর ইউনিয়নের কালাইগোবিন্দপুর গ্রামের প্রবাস ফেরত আনোয়ার হোসেন ১০ শতক জমিতে মাল্টা চাষ করে সফলতা পেয়েছেন। কৃষি অফিসের সহযোগিতায় ও পরামর্শে আজ তিনি সফল মাল্টা চাষি। তার এ সফলতা দেখে অনেকেই অগ্রহী হয়ে উঠছেন মাল্টা চাষে।

জানা যায়, বিদেশ থেকে আসার পর পরিত্যক্ত স্থানে মাটি ভরাট করে উপজেলা কৃষি অফিসে যোগাযোগ করেন মাল্টা চাষ শুরু করেন। বর্তমানে তার প্রতিটি গাছে ২০০ থেকে ৩০০ মাল্টা শোভা পাচ্ছে।

আনোয়ার হোসেন বলেন, আমার নিজস্ব জায়গাটি আড়াই বছর আগে বালু দিয়ে ভরাট করা হয়। বালুতে কি চাষ করা হয়, এটা নিয়ে চিন্তিত ছিলাম। তবে কৃষি অফিসে যোগাযোগ করলে তারা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা কাউছার স্যারের যোগাযোগ করতে বলেন। পরে তার পরামর্শে ও কৃষি অফিসের সহযোগিতায় তাকে আমি মাল্টা চাষ করি।

কালাইগোবিন্দপুর ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. কাউছার আহমেদ বলেন, প্রায় আড়াই বছর আগে লেবু জাতীয় ফসলের সম্প্রসারণ, ব্যবস্থাপনা ও উৎপাদন বৃদ্ধি প্রকল্পের আওতায় ১০ শতক জমিতে বারি মাল্টা-১ জাতের মাল্টা ও কিছু কলম্বো জাতের লেবুর চারা দিয়ে বাগানটি করা হয়েছে। বর্তমানে প্রতিটি গাছে প্রচুর পরিমাণে মাল্টা ধরেছে। গাছ প্রতি প্রায় ২০০ থেকে ৩০০ মাল্টা আছে যা নভেম্বরেরর মাঝামাঝি সময়ে পরিপক্ব হবে।

উপজেলা কৃষি অফিসার মো. সালাহ উদ্দিন বলেন, আগে কৃষক ভাবতো উন্নত ফল-ফলাদি এলাকায় উৎপাদন হয় না। তবে ক্রমে ক্রমে এ ধারণা ভুল প্রমাণিত হয়েছে। সঠিক তথ্য, বীজ আর পরামর্শ পেলে কৃষক যে সফল হয় তার একটি উদাহরণ হলো আনোয়ার হোসেন। তার বাগানে আড়াই বছর বয়সী মাল্টার ৩০টি গাছ রয়েছে। উপজেলার অনেক এলাকা মাল্টা চাষের উপযোগী। কৃষক ইচ্ছে করলে এ চাষে আগ্রহী হলে আমরা আমাদের সাধ্যমতো সেবা দিতে চেষ্টা করবো।

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ