• শনিবার   ২৬ নভেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১২ ১৪২৯

  • || ০২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

কুড়িগ্রামের লটকন ছড়িয়ে পড়ছে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ১৭ জুলাই ২০২২  

গাছের মগডালে থোকায় থোকায় ঝুলছে লটকন। লোভনীয় এই সুস্বাধু ফলটির দিকে তাকালেই জিভে পানি এসে যায়। এর আস্বাদন পায়নি এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া ভার। কুড়িগ্রাম জেলায় এবার ব্যাপক হারে চাষ করা হয়েছে লটকন। ফলন বিপর্যয়ের কারণে কৃষকদের কপালে চিন্তার ভাঁজ পরলেও এবার দ্বিগুণের উপর দাম পাওয়ায় তাদের মুখের চওড়া হাসি কপাল পর্যন্ত ঠেকেছে।

ভিটামিন ‘সি‘ সমৃদ্ধ এই ফল চাষ করতে লাগে না কোনও ক্ষতিকর রাসায়নিক সার বা কীটনাশক। একটু যত্ন এবং আলো-বাতাসের ব্যবস্থা করতে পারলেই প্রচুর অর্থ উপার্জন করা যায়। এই ফলের প্রধান শত্রু পিঁপড়া ও আঁচা। এদের থেকে দূরে থাকতে হলে একটু ডালপালা ছাটাই করতে হবে, সময়মতো স্প্রে ও সার দিতে হবে তাহলেই পিঁপড়া ও আঁচা থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে।

কুড়িগ্রাম জেলায় প্রায় ৮/৯ শতাধিক কৃষক লটকন চাষে সম্পৃক্ত বলে জানিয়েছেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। আর এই ব্যবসার সঙ্গে প্রায় ৫৭ জন ব্যাপারী জড়িত বলে জানা গেছে।

কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার কাঁঠালবাড়ী ইউনিয়নের সন্নাসী গ্রামের কৃষক আবু বক্কর সিদ্দিক জানান, কুড়িগ্রাম জেলার লটকনের চাহিদা রয়েছে দেশজুড়ে। এখানকার লটকনের স্বাদ, সাইজ ও মান ভালো হওয়ায় প্রতি বছর দেশের বিভিন্ন প্রাপ্ত থেকে পাইকাররা ছুটে আসেন এখানকার লটকন কিনতে। গত বছর আমরা ১ হাজার ২০০ থেকে ১ হাজার ৪০০ টাকা মন দরে লটকন বিক্রি করেছি। এবার লটকনের মন ২ হাজার ৬০০ টাকা থেকে ৩ হাজার ২০০ টাকা মন দরে বিক্রি করতে পারছি। কিন্তু আমাদের দুর্ভাগ্য এবার লটকনের ফলন ভালো হয়নি। ফলন ভালো হলে চাষীরা প্রচুর পরিমাণে লাভবান হতো।

একই এলাকার শিবরাম গ্রামের চাষী জয়নাল মিয়া জানান, আমরা শুনেছি ১১ থেকে ১২টা দেশে আম রপ্তানী হয়। দেশের বাইরে লটকনের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। কৃষি বিভাগ ও সরকার যদি চেষ্টা করত তাহলে দেশের লটকন বাইরে বিক্রি করে আমরা লাভবান হতে পারতাম। তবে আমাদের কষ্টের জায়গা হলো স্থানীয় কৃষি বিভাগ এই সেক্টরটিকে ঠিকমতো দেকভাল করেন না। এ কারণে প্রায় সময় ফলন বিপর্যয়ের মুখে পড়ে চাষীরা। এ সময় পরামর্শ দেওয়ার মতো কাউকে পাওয়া যায় না।

কাঁঠালবাড়ী বাজারের পাইকার ও দেবালয় গ্রামের তাজুল ইসলাম জানান, আগে আমরা নিজেরাই দেশের বিভিন্ন প্রান্তে নিয়ে গিয়ে লটকন বিক্রি করতাম। কিন্তু এখন সবকিছুতে মূল্যবৃদ্ধির কারণে সেটা অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে। আগে এক খাচা লটকনের দাম ছিল ১০০ টাকা এখন সেটা পরিবহনে খরচ বৃদ্ধি পেয়েছে ৩০০ টাকায়। এ ছাড়াও লটকন সংগ্রহ করতে শ্রমিকদের ১০০ টাকা দিলেই হতো। এখন দিতে হচ্ছে ৪০০ টাকা করে। ফলে আমরা আগের তুলনায় কম লাভবান হচ্ছি। আর সব ক্ষেত্রে সরকার অনুদান দিলেও এই ক্ষেত্রে কোন অনুদান দেওয়া হয় না।

সিরাজগঞ্জ থেকে লটকন কিনতে আসা পাইকার আব্দুল কুদ্দুস জানান, এখানকার লটকন খুব সুস্বাধু, দামও তুলনামূলক কম। নরসিংদীর লটকন ৩ হাজার ৫০০ টাকা মন। এখানকার লটকন ৩ হাজার টাকার মধ্যেই পাওয়া যাচ্ছে। এখানকার লটকন কিনতে ঢাকা, বগুড়া, চট্টগ্রাম, সিরাজগঞ্জ, ময়মনসিংহ, সিলেট, যশোর, বরিশাল, কুয়াকাটা, ফরিদপুরসহ বিভিন্ন জেলা থেকে পাইকাররা এসেছে।

এ ব্যাপারে কুড়িগ্রাম কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের ভারপ্রাপ্ত উপপরিচালক কৃষিবিদ মো. শামসুজ্জামান জানান, কুড়িগ্রাম জেলার মধ্যে সদর উপজেলা, রাজারহাট, ফুলবাড়ী, নাগেশ্বরী, ভুরুঙ্গামারী ও উলিপুর উপজেলায় লটকন চাষ করা হয়। বিশেষ করে সুপারী গাছের সাথে এই লটকন অল্প খরচে চাষ করে লাভবান হয় কৃষকরা। তবে তারা যদি একটু যত্নবান হতো, আলো-বাতাসের ব্যবস্থা করত তাহলে এই খাত থেকে তারা প্রচুর অর্থ উপার্জন করতে পারত।

বিদেশে রপ্তানির ব্যাপারে তিনি জানান, প্রাপ্যতা ও মান অর্জন করতে পারলে অবশ্যই বিদেশে পাঠানো সম্ভব। আমরা সেই জায়গা থেকে এখনও বেশ কিছুটা দূরে রয়েছি।

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ