মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১

নোয়াখালীতে ডিএসবির দুই এএসআই প্রত্যাহার

নোয়াখালীতে ডিএসবির দুই এএসআই প্রত্যাহার

নোয়াখালী আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস থেকে তিন রোহিঙ্গা পাসপোর্ট করার ঘটনায় ডিএসবির দুই এএসআইকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। তারা হলেন-আবুল কালাম ও নুরুল হুদা। শনিবার রাতে এক আদেশে তাদের জেলা পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন নোয়াখালীর এসপি মো. আলমগীর হোসেন।  

এসপি জানান, ৬ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশি পাসপোর্টধারী তিন রোহিঙ্গা তরুণকে চট্টগ্রামের আকবরশাহ থেকে আটক করে পুলিশ। তারা দালালের মাধ্যমে নোয়াখালী আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস থেকে পাসপোর্ট করার কথা পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করে। ওই তিন তরুণ তাদের পাসপোর্ট আবেদনে জেলার সেনবাগের কাদরা ইউপির বাসিন্দা দেখিয়ে জন্ম নিবন্ধন সনদ ও নাগরিকত্ব সনদ জমা দেয়। 

তিনি আরো জানান, কাদরা ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ কামরুজ্জামানের দাবি, তিন রোহিঙ্গা তরুণের নামে জন্ম নিবন্ধন সনদ ও নাগরিকত্ব সনদের যে কপি পাসপোর্ট অফিসে জমা দেয়া হয়েছে, সেরকম কোনো সনদ তিনি দেননি। তাদের জন্ম নিবন্ধন সনদে ইস্যুর তারিখ ২০১৫ সালের ২৮ জানুয়ারি দেখানো হয়েছে। কিন্তু ইউপির নিবন্ধন রেজিস্ট্রার বা অনলাইন সার্ভারে এর কোনো অস্তিত্ব নেই। মুসা ও আজিজের নামে দুটি নাগরিকত্ব সনদেই সিরিয়াল নম্বর দেয়া হয়েছে ১৪৮৭। অথচ একটি নম্বরে একাধিক সনদ দেয়ার সুযোগ নেই। চেয়ারম্যান জন্ম নিবন্ধন সনদগুলো সম্পূর্ণ ভুয়া ও জালিয়াতি বলে জানিয়েছেন। 

এসপি মো. আলমগীর হোসেন জানান, ওই ঠিকানা যাচাইয়ের পর নোয়াখালী আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে প্রতিবেদন দেয়ার দায়িত্বে ছিলেন ডিএসবির এএসআই আবুল কালাম আজাদ ও নুরুল হুদা। বৃহস্পতিবার এএসআই আবুল কালাম আজাদ ও নুরুল হুদাকে কারণ দর্শানোর আদেশ দেয়া হয়। শুক্রবার তাদের কাছ থেকে জবাব পাওয়া গেছে। সেই জবাব সন্তোষজনক না হওয়ায় তাদের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দিয়ে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে।

তিনি আরো জানান, বেগমগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত এসপি মো. শাহজাহান শেখকে পুরো বিষয়টি তদন্ত করে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। সোমবার তদন্ত প্রতিবেদন পেলে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে। 

 

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

সর্বশেষ: