• মঙ্গলবার   ২৬ জানুয়ারি ২০২১ ||

  • মাঘ ১৩ ১৪২৭

  • || ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

সিরাজগঞ্জে খামারে হাঁস পালনে ঝুঁকে পড়েছে বেকার নারী-পুরুষ

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ২৪ নভেম্বর ২০২০  

সিরাজগঞ্জের গ্রামাঞ্চলে হাজার হাজার বেকার নারী-পুরুষ হাঁস পালনে ঝুঁকে পড়েছে। এতে তারা বেকারত্ব অভিশাপ থেকে মুক্তি পাচ্ছে। ইতিমধ্যেই অনেক নারী পুরুষ স্বাবলম্বী হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট প্রাণিসম্পদ বিভাগ সূত্রে জানা যায়, যমুনা নদীর তীরবর্তী ৫টি উপজেলার চরাঞ্চলসহ জেলার ৯টি উপজেলার বিভিন্ন গ্রামঞ্চলে ১ হাজার ২৩২ টি হাঁসের খামার রয়েছে। এসব খামারসহ পারিবারিকভাবে ১৪ লাখ ৩৫ হাজার বিভিন্ন প্রজাতির হাঁস পালন করা হচ্ছে। এর মধ্যে দেশী, খাকি ক্যাম্বশ, ইন্ডিয়ান রানা ও রাঁজহাঁস।

বেকার নারী পুরুষেরা এসব প্রজাতির হাঁস পালনে ঝুঁকে পড়েছে। তবে যমুনা নদীর তীরবর্তী চৌহালী, বেলকুচি, শাহজাদপুর, কাজিপুর ও সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার চরাঞ্চলসহ চলনবিল এলাকার তাড়াশ, রায়গঞ্জ, উল্লাপাড়া উপজেলার বিভিন্ন স্থানে এ হাঁস পালন বেশি হচ্ছে।

খামারীরা বলছেন, স্থানীয় খাল, বিল নদী নালা ও ডোবাতে এ হাঁসের খামার গড়ে তোলা হয়। বিশেষ করে অস্থায়ী খামারের হাঁসগুলো খাল বিলের মধ্যে থাকা ছোট ছোট মাছ ও শামুক খেয়ে থাকে। এতে তেমন খরচ না হওয়ায় লাভজনক এ হাঁস পালনে বৃদ্ধি পাচ্ছে খামার ও খামারির সংখ্যা।

এসব হাঁসের মাংস ও ডিম স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে। এমনকি জাতীয় অর্থনীতিতেও গুরুত্বপ‚র্ণ ভ‚মিকা রাখছে এ হাঁসের খামার। মূলত গ্রামের মাঠে অল্প পানিতে উন্মুক্তভাবে হাঁস পালন করা যায়। বেকার নারী-পুরুষেরা চাকুরীর পিছনে না ছুটে অল্প পুঁজি নিয়ে হাঁসের খামার পালন শুরু করে। এতে বেকার সমস্যা দ‚র হবে এবং তারা স্বাভলম্বী হবে। ইতিমধ্যেই এ জেলার বহু নারী পুরুষ বেকারত্বের অভিশাপ থেকে মুক্তি পেয়ে স্বাবলমী হয়েছে।

এ বিষয়ে জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ মো: আখতারুজ্জামান ভুঁইয়া আলোকিত বাংলাদেশকে বলেন, বিশেষ করে ভাসমান পদ্ধতিতে হাঁস পালনে খরচ অনেকটাই কম হয়। এতে লাভও তুলনামূলকভাবে অনেক বেশি হয়ে থাকে। খামারীদের আর্থিকভাবে সহযোগিতা না করতে পারলেও হাঁসের চিকিৎসা, টিকা ও পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। এ হাঁস পালনে ইতিমধ্যেই বহু বেকার নারী পুরুষ স্বাবলম্বী হয়েছে। তারা সরকারিভাবে আর্থিক সহযোগিতা পেলে খামারে হাঁস পালন আরো বাড়বে এবং বেকারত্বও দূর হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ