• সোমবার   ৩০ নভেম্বর ২০২০ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৬ ১৪২৭

  • || ১৫ রবিউস সানি ১৪৪২

২৬

শীতকে সামনে রেখে ব্যস্ততা বেড়েছে কুমড়ো বড়ি তৈরির কারিগরদের

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ২০ নভেম্বর ২০২০  

শীত আসতেই সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলায় ব্যস্ততা বেড়েছে কুমড়া বড়ি তৈরির কারিগরদের। কারণ শীতের মৌসুমে কুমড়া বড়ির কদরটা একটু বেশিই। এ অঞ্চলের সুস্বাদু কুমড়া বড়ির চাহিদা রয়েছে দেশের বিভিন্ন এলাকায়। তাই প্রতি বছরের মত উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে কুমড়া বড়ি তৈরি করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কুমড়া বড়ির কারিগড় ও ব্যবসায়ীরা। কুমড়া বড়ি ব্যবসায়ীরা মনে করেন, আগাম কুমড়া তৈরির পর বিক্রী করলে তা লাভজনক ও বেশি দাম পাওয়া যাবে। সরজমিনে উপজেলার নওগাঁ ইউনিয়নের নওগাঁ গ্রামে দেখা যায়, সারি সারি কুমড়া বড়ি তৈরি করে শুকানোর জন্য রোদে দিয়েছেন। আর এ কাজে নারীদের পাশাপাশি পুরুষরাও এ কাজ করছেন।

কুমড়া বড়ি ব্যবসায়ী আলমগীর হোসেন বলেন, হাট বাজারে কুমড়ো বড়ি বর্তমানে খুচরা ৭০-৮০ টাকা কেজি বিক্রয় হচ্ছে। তবে তারা আশা করছেন আর কয়েকদিন পর আরো দাম বাড়বে। তাড়াশ উপজেলার কুমড়া বড়ি ব্যবসায়ী প্রদীপ কর্মকার জানান, অত্যান্ত সুস্বাদু হওয়ায় এ অঞ্চলের কুমড়া বড়ি এলাকার চাহিদা মিটিয়ে দেশে বিভিন্ন প্রান্তে পাঠানো হয়। বিশেষ করে ঢাকায় চাহিদা রয়েছে বেশি। তিনি আরো জানায়, এটি সারা বছর তৈরি করা সম্ভব কিন্তু এটা শীতকালে বেশী তৈরি হয়। কারন এটা শীতের সময় রান্না করে খেতে বেশি মজা লাগে।

জানা যায়, গ্রামের পিছিয়ে পড়া মানুষের অনেকের ভাগ্য উন্নয়নে শ্রম দিয়ে অনেক বছর ধরে এ কুমড়া বড়ি তৈরির কাজে নিয়োজিত রয়েছে তাড়াশ উপজেলার নওগাঁ ইউনিয়নের নওগাঁ গ্রামের প্রায় ৩০-৪০টি পরিবার। কুমড়া বড়ির কারীগর উপজেলার নওগাঁ গ্রামের ভাংশিং পাড়ার আব্দুল হামিদ জানান, আগে কুমড়া বড়ি ব্যবসায়ী পরিবারগুলো প্রথম অবস্থায় তেমন সচ্ছল ছিল না। এখন তারা অনেকটাই সচ্ছল কুমড়া বড়ি ব্যবসা করে। তাছাড়া বড়ি তৈরির জন্য আগে তারা সনাতন পদ্ধতিতে সন্ধ্যায় ডাল ভিজিয়ে রাখতেন এবং পরের দিন তারা কুমড়ো বড়ি তৈরির জন্য ডাল, রং,তেল,টিন ও শীলপাট বেটে বড়ি তৈরি করতেন।

কিন্তু বর্তমানে তাদের কষ্ট করতে হয় না। কারণ মেশিনের মাধ্যেমে কুমড়া বড়ি তৈরির ডাল ফিনিশিং করা যায়। নওগাঁ গ্রামের কুমড়া বড়ি তৈরির কারিগর সোনাভান খাতুন জানান, কুমড়ো বড়ি তৈরি করতে তাদের প্রচুর পরিশ্রম করতে হতো। কিন্তু এখন অতোটা পরিশ্রম করতে হয় না কারন এখন মেশিনের মাধ্যমে ডাল ফিনিশ করা হয়। শুধু হাতে মাধ্যমে দিতে হয় বড়িটি।

এ ছাড়া বর্তমান সরকারের উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় তথ্য প্রযুক্তির ছোয়ায় অটোমেশিনের দ্বারা ডাল ও চাল ভাঙ্গানো হয়। তাই পরিশ্রম এখন কম।

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ
সিরাজগঞ্জ বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর