• শুক্রবার   ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||

  • আশ্বিন ১০ ১৪২৭

  • || ০৮ সফর ১৪৪২

১৮০

শীতকালীন সবজি চাষে মাঠে নেমেছে সিরাজগঞ্জের চাষীরা

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ২৫ নভেম্বর ২০১৯  

সিরাজগঞ্জে কৃৃষকদের মধ্যে সবজি চাষের ধুম পড়েছে। শীতের আগেই বাজারে শীতকালীন সবজি নামাতে আগাম শাকসবজি বাজারে তুলতে পারলেই অধিক টাকা উপার্জন করা সম্ভব বলে ব্যস্ত জেলার বিভিন্ন উপজেলার কৃৃষকরা।

সিরাজগঞ্জ কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, জেলার ৯ টি উপজেলায় ২ হাজার ৪’শ ৪৭ হেক্টর জমিতে সবজি চাষ হয়। বেগুন, মুলা, টমেটো, শিম, বরবটি, শসা, লাউ, কুমড়া, ফুলকপি, বাঁধাকপি, ক্ষীরাসহ বিভিন্ন জাতের সবজি চাষ করার লক্ষ্য নিয়ে কৃষকরা মাঠে নেমেছে।

জেলার সিরাজগঞ্জ সদর, চৌহালী, রায়গঞ্জ,বেলকুচি ও কামারখন্দ উপজেলায় ব্যাপকহারে শাকসবজি চাষ হয়। সাম্প্রতিক সময়ে চাষিরা সবজি চাষ করে লাভবান হওয়ায় তারা শীতের আগাম চাষে ঝুঁকে পড়েছে। আগাম সবজির মধ্যে রয়েছে মুলা, বেগুন, শিম, ফুলকপি, বাঁধা কপি, লালশাক, তিতা করলা, টমেটো, ঢেরশ, পালংশাক ও পুঁই শাক ইত্যাদি।

তবে সামান্য বৃষ্টি হওয়াতে সবজি চাষ আগের চেয়ে ভালো হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সরেজমিন রায়গঞ্জ উপজেলার গ্রামগুলোতে দেখা গেছে, চাষিরা ব্যাপকহারে শীতকালীন সবজি চাষ করছে।

আগাম শাকসবজি রোপনে ব্যস্ত সময় পার করছেন ব্রম্মগাছা ইউনিয়নের খামারগাঁতী গ্রামের কৃষক আজের আলী। তিনি ৫০ শতক জমিতে এ বছর শীতকালীন সবজি চাষ করছে। স্থানীয় কয়েকজন কাচাঁমাল ব্যবসায়ী জানান, যে কোনো সবজি যদি মৌসুমের শুরুতে বাজারে তোলা যায়, তবে তার দাম বেশি পাওয়া যায়।

এ ছাড়া অত্র জেলার সদর,কামারখন্দ, বেলকুচি,তাড়াশ, রায়গঞ্চ উপজেলায় ব্যাপক হারে সবজি চাষ হয়। এখান থেকে প্রচুর পরিমাণ সবজি স্থানীয় ভাবে চাহিদা মিটিয়ে অন্যান্যস্থানে নিয়ে যাওয়া হয়।

ক্ষেত থেকে আগাছা পরিস্কার এবং পর্যাপ্ত পানি দিচ্ছে। কেউ কেউ ফসলের উপর বিভিন্ন পোকা-মাকড় থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য কীটনাশক ছিটিয়ে যাচ্ছে। প্রতিটি জমিতেই ভালো ফসল উৎপাদনের জন্য কৃষকরা খুব যত্ন সহকারে পরিশ্রম করে যাচ্ছে। তবে মাঠ থেকে পরিপূর্ণ ফল তুলতে আরো সময় লাগবে। এ দিকে কৃষকদের দাবি কৃষি বিভাগের বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে তারা। যার কারণে ফসল উৎপাদন করতে গিয়ে তাদের খরচও একটু বেশি পড়ে।

সদর উপজেলার বহুলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জানান, এবার ভাল সবজি ফলন হবে বলে আশা করা যাচ্ছে। এ বিষয়ে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক বলেন, সার্বক্ষণিক উপজেলা পর্যায়ে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা মাঠে কৃষকদের ভাল ফলন উৎপাদনের পরামর্শ দিচ্ছে।

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ
অর্থনীতি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর