• বৃহস্পতিবার   ২২ এপ্রিল ২০২১ ||

  • বৈশাখ ৯ ১৪২৮

  • || ১১ রমজান ১৪৪২

শিখতে শিখতে শিল্পী হলেন প্রীতম

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ৫ এপ্রিল ২০২১  

সানি প্রীতম। গণ বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগে পড়াশোনা তার। নাচ, অভিনয়, ফটোগ্রাফি সবকিছুর সঙ্গেই তার সখ্য। ছেলেবেলায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে মায়ের মঞ্চ নাটক দেখতেন। তার বাবাও সংস্কৃতিমনা। সে বয়সে নাচ, অভিনয় বুঝতেন না প্রীতম। স্কুলে ভর্তির আগেই নাচের স্কুলে ভর্তি করায় তার পরিবার। সেই থেকে শুরু। 

টাঙ্গাইল জেলার মির্জাপুরে জন্ম ও বেড়ে ওঠা। এখন সাভারে থাকছেন, স্নাতকের শেষ বর্ষের ছাত্র। কাজ করছেন কয়েকটি মূর্তিনির্মাণ চিত্রে। শোনালেন সেই গল্প, সম্প্রতি একটি হ্যালোইন থিমে ফটোশুট করেছি। এছাড়াও বেহুলা গান কভার করি। তা ‘সানি প্রীতম’ ইউটিউব চ্যানেলে মুক্তি পায় ১ এপ্রিল। বেশ ভালো সাড়া পাচ্ছি।

ক্যাম্পাসে বন্ধুরা যখন একত্র হন, প্রীতম হয়ে যান আড্ডার কেন্দ্র। করোনাকালীন ক্যাম্পাস বন্ধে ব্যস্ত সময় কাটছে প্রীতমের। তিনি বললেন, রামতা যোগী গানের শুটিং শেষ করলাম। স্বাধীনতার ৫০ বছর উপলক্ষে ২৬শে মার্চে ‘স্লোগান’ প্রজেক্ট রিলিজ হয়েছে আমার। বাংলাদেশে প্রথম হাই হিলস নাচের যাত্রা শুরু হয় চলতি বছরের ৩ জানুয়ারি। এই ড্যান্স গ্রুপের একজন সদস্য হিসেবে যুক্ত আছি। 

ইনস্টাগ্রামে তার ফলোয়ার সংখ্যা ২৮.৫ হাজার, ফেসবুকে সাড়ে পাঁচ হাজার এবং ইউটিউবে ১.৮৭ হাজার সাবসক্রাইবার আছে প্রীতমের। নৃত্যের পাশাপাশি কোরিওগ্রাফি শিখেছেন ক্যাম্পাসের এই প্রিয়মুখ। তা ছাড়াও পশু-পাখি, প্রকৃতির আলোকচিত্র ধারণ করে তা তুলে দেন ইনস্টাগ্রাম ও ফেসবুকে। সেখানে বন্ধুবান্ধব ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের প্রশংসা কুড়িয়েছে। 

জানতে চাইলে বললেন, ফটোগ্রাফি করি টুকটাক। শখের বসেই করি। পেশাদারীভাবে করি না। নিজেকে সফল নৃত্যশিল্পী ও মডেল হিসেবে গড়ে তুলতে চাই।

নিয়মিত সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় অংশ নেন তিনি। বেশিরভাগ সময়ে হতেন প্রথম বা দ্বিতীয়। বাংলাদেশী রিয়েলিটি টেলিভিশন ‘নতুন কুঁড়ি’ প্রতিযোগিতায় সানি প্রীতম ঢাকা বিভাগে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেন।

অবসরে সিনেমা দেখতে পছন্দ করেন। শারীরিক ফিটনেস নিয়েও সচেতন তিনি। নিয়মিত অনুশীলন করেন নাচের। শখের ক্যারিয়ার গড়তে প্রীতম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সহায়তা পেয়েছে খুবই সামান্য। 

সানি প্রীতম বলেন, ক্যাম্পাসের উচিত খেলোয়াড়দের পাশাপাশি শিল্পীদের জন্য কিছু সুযোগ সুবিধা রাখা। যা আমি পাইনি৷ বিশেষ করে শ্রেণী উপস্থিতির ব্যাপারে ছাড় দেওয়া দরকার। 

স্বাধীন বাংলাদেশের নৃত্যশিল্পকে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ছড়িয়ে দিতে চান প্রীতম। দেখতে চান সফল নৃত্য শিল্পীর তালিকায় নিজেকে।

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ