• বৃহস্পতিবার   ২৮ জানুয়ারি ২০২১ ||

  • মাঘ ১৪ ১৪২৭

  • || ১৪ জমাদিউস সানি ১৪৪২

যেখানে নদী ভাঙন সেখানেই প্রকল্প গ্রহণ করা হচ্ছে

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ২৭ নভেম্বর ২০২০  

পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক বলেছেন, আমাদের নদী মাতৃক দেশের চারদিকেই বিভিন্ন নদ-নদী। সরকার নদী ভাঙন ঠেকাতে ও নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে। কারণ নদী ভাঙনে যাদের বসতভিটা বিলীন হয় তাদের মত কষ্ট আর কারও নেই। এজন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আমরা যেখানেই নদী ভাঙনের খবর পাই সেখানেই ছুটে যাই।

এছাড়া যেখানেই নদী ভাঙন সেখানেই প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক আরও বলেন, আমার দাদার কবর ছাড়া বসত ভিটা নদীতে চলে গেছে। এজন্য ভাঙন কবলিত এলাকার মানুষের কষ্ট আমি বুঝি। যত দ্রুত সম্ভব চৌহালীতে যমুনার তীর সংরক্ষণে স্থায়ী কাজ শুরু করা হবে। কাজের মান যেন ভাল হয়, সে জন্য আমি নিজে তদারকির চেষ্টা করবো। যাতে কেউ যেন ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্থ না হয়। সে জন্য দ্রুততার সঙ্গে নতুন প্রকল্প দিয়ে কাজ শুরু করা হবে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে চৌহালী উপজেলার বাঘুটিয়া ইউনিয়নের বিনাইন নদীর পাড়ে ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্থদের আয়োজনে আলোচনা সভায় প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক এসব কথা বলেন। সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন স্থানীয় সংসদ সদস্য আবদুল মমিন মন্ডল।

এর আগে তারা স্পিডবোর্ট নিয়ে যমুনা নদীর চৌহালী এলাকার প্রায় ৩৩ কিলোমিটার এলাকা পরিদর্শন করেন।

এসময় পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রধান প্রকৌশলী আবদুল মতিন, টাঙ্গাইল পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী সিরাজুল ইসলাম, চৌহালী উপজেলা চেয়ারম্যান ফারুক সরকার, ইউএনও আফসানা ইয়াসমিন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আবু নজির মিয়া, সহসভাপতি হাবিবুর রহমান, সাবেক সভাপতি হযরত আলী মাষ্টার, যুগ্মসম্পাদক তাজ উদ্দিন ও ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল কাহ্হার সিদ্দিকী উপস্থিত ছিলেন।


আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ