• শুক্রবার   ০৭ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ২৩ ১৪২৭

  • || ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

২১

ব্যাকটেরিয়া ধ্বংসকারী এই তেলের রয়েছে হাজারো স্বাস্থ্যগুণ!

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ২ জুলাই ২০২০  

রান্নায় তেলের বিকল্প নেই। তবে ভাববেন না আবার, সয়াবিন তেলের কথা বলছি! তিলের তেল সম্পর্কে সবাই কমবেশি জানেন! এই তেলের রয়েছে হাজারো স্বাস্থ্যগুণ। সাদা ফুল থেকে হয় কালচে তিলের দানা আর এ থেকেই হয় তিলের তেল। তিলের যেমন পুষ্টিগুণের অভাব নেই, তেমনি নেই তিলের তেলেরও। রান্নায়ও তিলের তেলের সমান গুরুত্ব। 

তিলের তেলকে ইংরেজিতে সেসেমি অয়েল বলা হয়। বর্তমানে বিভিন্ন অনলাইন শপসহ সুপার শপেও এই তেল সহজেই মিলবে। স্বাস্থ্য সুরক্ষার পাশাপাশি ত্বক ও চুলের যত্নেও এই তেলের কার্যকারিতা অনেক। তবে জেনে নিন তিলের তেল ব্যবহারে যেসব উপকারিতা মিলবে-

> যাদের ত্বকে রোদে পোড়া ভাব রয়েছে, তাদের ওই পোড়া দাগ দূর করতে পারেন এ তেল ম্যাসাজের মাধ্যমে। 

> এই তেল ব্যবহারে চুল পড়া বন্ধ হয়। মাথাও ঠাণ্ডা থাকে। তিলের তেল চুলের খুশকিও দূর করে।

> শীতের সময় রাতে ঘুমানোর আগে সামান্য কর্পূর তিলের তেলের সঙ্গে মিশিয়ে ত্বকে ম্যাসাজ করলে উষ্ণতা পাওয়া যায়। 

> তিলের তেলে রয়েছে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদানসমূহ। সেই সঙ্গে এতে রয়েছে স্বাস্থ্যকর ফ্যাটি এসিড যা এইডসসহ যে কোনো প্রদাহ কমাতে সাহায্য করে।

> অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে ভরপুর তিলের তেল। এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট পুষ্টি সহজে নষ্ট হয় না। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে শরীরে এই উপাদানের প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম।

> নিয়মিত তিলের তেল খাওয়ার মাধ্যম ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব।

> উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা বর্তমানে অনেকেই ভুগে থাকেন। এর থেকে পরিত্রানের উপায় হলো তিলের তেল। 

> যে কোনো ব্যাকটেরিয়া ধ্বংসে এই তেল কার্যকরী। এতে রয়েছে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল উপাদসমূহ যা শরীরের ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া ধ্বংসে সাহায্য করে।

> বিষণ্নতা বা ডিপ্রেশনের সমস্যা কমায় তিলের তেল। এজন্য নারকেল তেলের সঙ্গে তিলের তেল মিশিয়ে হট অয়েল ম্যাসাজ নিলে বেশ উপকৃত হবেন।

> তিলের তেল বাইরের ক্ষতি থেকে শরীরের কোষের ডিএনএ সুরক্ষিত রাখে ঠিক বিকিরণের মত।

> গবেষণায় দেখা গেছে তিলের তেল ক্যান্সারের বৃদ্ধি রোধ করতে সহায়তা করে।

> শুষ্ক ত্বকের জন্য চমৎকার ময়েশ্চারাইজার হিসেবে কাজ করে তিলের তেল।

> তিলের তেলে রয়েছে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট প্রপার্টিস যা দ্রুত বুড়িয়ে যাওয়া ঠেকায়। 

> এই তেল ব্যবহারে ত্বকের মরা চামড়া দূর হয়। সেই সঙ্গে ত্বকের কোষ মেরামতে সাহায্য করে তা সুন্দর ও লাবণ্যময় করে তোলে।

> এটা একটি প্রকৃতি প্রদত্ত সানস্ক্রীন যা রোদ থেকে ত্বককে রক্ষা করে। তিলের তেলের ব্যবহারে ত্বক হয় সজীব। রোদে পোড়া ভাব দূর করতে এই তেল খুবই উপকারী।

> এটা বাতগ্রস্ত রোগীদের জন্য আয়ুর্বেদীয় তেল হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এটি রিউম্যাটয়েড চিকিৎসায়ও ব্যবহার করা হয়।

> কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা থেকে পরিত্রাণ পেতে তিলের তেল বেশ কার্যকরী। এজন্য এই তেল নিয়মিত রান্নায় ব্যবহার করতে পারেন।

সূত্র: ওয়েলহেলথবেনিফিট

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ
লাইফস্টাইল বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর