• সোমবার   ২৫ মে ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১১ ১৪২৭

  • || ০৩ শাওয়াল ১৪৪১

৭৬

বেলকুচিতে বহুমুখি ফসল চাষাবাদে সাবলম্বী কৃষক

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ৮ মার্চ ২০২০  

বেলকুচি উপজেলায় উৎপাদিত ফসলের মধ্যে ধানই প্রধান ফসল। এর পাশাপাশি কৃষি জমিতে আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে বহুমুখি ফসলের চাষাবাদ করে ব্যাপক সফলতা অর্জনের সম্ভাবনার দ্বার প্রান্তে বেলকুচির কৃষি।

সিরাজগঞ্জ জেলা ও উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, ধান চাষের পাশাপাশি কৃষকরা জমিতে বিভিন্ন ফল ও সবজি চাষ করে ব্যাপক সফলতা অর্জন করছে। বিভিন্ন জাতীয় সবজির মধ্যে ফুলকপি, পাতা কপি, মুলা, বেগুন অন্যতম। যেমন , লাউ, মিষ্টিকুমড়া, চাল কুমড়া, শষা, ধুন্দল, বাঙ্গি, ঢেঁড়শ, খিড়া ইত্যাদি ছাড়াও বেগুন, লাল শাক, পুঁইশাক, পালং শাক।

সম্প্রতি এলাকার বিভিন্ন ডিলার ও কৃষিসম্প্রসারণ অফিসে সেক্স ফেরোমোন টোপ সহজেই পাওয়া যাচ্ছে। সেক্স ফেরোমোন ফাঁদ ব্যাবহারে বাড়ছে বিষমুক্ত ‘সুস্থ’ সবল সবজির উৎপাদন। ধান উৎপাদনের তুলনায় সবজি চাষে কৃষকরা ৫ গুন লাভ পাচ্ছে।

বিপর্যয়ের হাত থেকে রক্ষা পাচ্ছে পরিবেশ। ফলে এ এলাকার কৃষকরা তাদের আবাদী জমিতে ধানের পাশাপাশি সবজিসহ বহুমুখি ফসল উৎপাদনের দিকে উৎসাহিত হচ্ছে। ইতমধ্যে সিরাজগঞ্জ ও বেলকুচি, শাহজাদপুর, উল্লাপাড়া, রায়গঞ্জ ও তাড়াশ উপজেলার অনেক চাষিই তাদের আংশিক জমিতে পরীক্ষা মূলকভাবে সবজি বাগানে সেক্স ফেরোমোন ফাঁদ ব্যাবহার করে ব্যাপক সফলতা পেয়েছে।

এসব চাষিদের মধ্যে রয়েছে বেলকুচি উপজেলার সগুনা গ্রামের ফুলকপি চাষি আক্কাস মিয়া, বেগুন চাষি জামালা মিয়, আলম, মানিক মিয়া, উল্লাপাড়া উপজেলার রহিমপুর ও মোহনপুর এলাকার আব্দুল মালেক, বেতকান্দি গ্রামের চাষি ফারুক মিয়া, দুলাল, বেলকুচি চরাঞ্চলের মাসুম, শামছুল হক, জাহিদ হাসমত , সলঙ্গা থানার ধুন্দল, ঢেরশ, চিচিঙ্গা ও শষা চাষি আলী মিয়া, সুলতান নুরু, নুর আলম, আলিম , সফিকুল ।

এছারাও জেলা ও উপজেলা উল্লেখ যোগ্য চাষিরা ধান উৎপাদনে উৎপাদন খরচের তুলনায় ধানের মূল্য না পাওয়ায় সবজি চাষে কম খরচে অধিক লাভ পাওয়ায় এ চাষে ঝুকে পড়ছে বলে জানান তারা। সরেজমিন পরিদর্শন কালে চাষিরা বলেন, সেক্স ফেরোমোন ফাঁদসহ আধুনিক কৃষি তথ্য প্রযুক্তি ব্যাবহার করে ধান ও অন্যান্য ফসলের তুলনায় একই জমিতে সবজি আবাদ করে ৪/৫ গুণ লাভ হয়।

তাই শুধু ধানের উপর নির্ভর না করে বিকল্প হিসাবে বিষমুক্ত সবজি ফসল আবাদের ব্যাপক পরিকল্পনা করছি। তবে এ ক্ষেত্রে সরকারী পৃষ্টপোষকতা পেলেই এ চাষে এলাকাসহ দেশে চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানী করা সম্ভব। তারা বলেন কৃষি অফিসার বেলকুচি উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা শাহাদৎ হোসাইস সিদ্দিকী মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছ থেকে কৃষি-পদক প্রাপ্ত তিনি আমাদের সু পরামর্শ দিয়েছেন এবং চাষাবাদে লাভবান হচ্ছি।

এব্যাপারে বেলকুচি উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শাহাদৎ হোসাইন সিদ্দিকী জানান, বেলকুচি ও সিরাজগঞ্জ জেলার কৃষিক্ষেত্রে শুধু ধান চাষের উপর নির্ভরশীল না হয়ে এর পাশাপাশি বিকল্প কৃষি উৎপাদনে আধুনিক তথ্য-প্রযুক্তি কাজে লাগিয়ে শাক-সবজিসহ অধিক লাভ জনক বহুমুখি ফসলের আবাদে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনা সম্ভব।

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ
সিরাজগঞ্জ বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর