• মঙ্গলবার   ২৬ জানুয়ারি ২০২১ ||

  • মাঘ ১৩ ১৪২৭

  • || ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

উন্নয়নের ছোঁয়ায় বদলে গেছে বেলকুচি পৌরসভা

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ৩ ডিসেম্বর ২০২০  

বর্তমান সরকারের উন্নয়নের ছোয়ায় পাল্টে গেছে সিরাজগঞ্জের বেলকুচি পৌরসভার চিত্র। রাস্তাঘাট পাকাকরণ-ড্রেনেজ ব্যবস্থা ও হাট-বাজারের ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। উন্নয়নের সুফল ভোগ করতে শুরু করেছে পৌরবাসী। সরকারের সদিচ্ছার পাশাপাশি উত্তরবঙ্গের একমাত্র নারী মেয়র আশানুর বিশ্বাসের আন্তরিকতা ও কর্মদক্ষতার কারণে এমন উন্নয়ন হয়েছে বলে মনে করছেন পৌরবাসী।

সরেজমিনে জানা যায়, বেলকুচি পৌরসভাকে আধুনিক নাগরিক সুবিধা সংবলিত উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা ও পরিকল্পিত নগর অবকাঠামো, আর্থ-সামাজিক ও ব্যবসা বান্ধব পরিবেশসহ ডিজিটাল পৌরসভা গড়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে উত্তরবঙ্গের একমাত্র নারী পৌর মেয়র নির্বাচিত হন বেগম আশানুর বিশ্বাস। নির্বাচনের পরই বেলকুচি পৌরসভার উন্নয়নে কাজে হাতে দেন। বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও দাতা গোষ্ঠীর সাথে যোগাযোগ  করে বেলকুচিতে পাঁচ বছরে দেড়শ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছেন, যা জেলার অন্যান্য পৌরসভায় করা সম্ভব হয়নি। 

পাঁচ বছরে প্রায় ৫০ কিলোমিটার পাকা রাস্তা, পৌর এলাকার জলাবদ্ধতা নিরসনের সাড়ে তিন কিলোমিটার সিসি ড্রেন ও স্ট্রিট লাইট স্থাপন করেছেন। অযত্ন-অরক্ষিত অবস্থায় থাকা অর্ধশত বছরের ঐতিহ্যবাহী সোহাগপুর হাটে চলাচলের রাস্তা পাকাকরণ, ড্রেন নির্মাণ, হাটের শেড, পাবলিক টয়লেট নির্মাণ করেছেন। যার সুফল ভোগ করছেন ব্যবসায়ীরা। ৪২ কোটি টাকা ব্যয়ে পানি সরবরাহের জন্য পানির লাইন স্থাপন চলছে। সমাজের অবহেলিত প্রতিবন্ধী শিশুদের লেখাপড়ার জন্য অটিজম স্কুল স্থাপন করেছেন। 

বাল্যবিবাহ বন্ধে প্রতিনিয়ত কাউন্সিলিং, ডিজিটাল সেন্টারের মাধ্যমে ওয়ারিশান সনদপত্র, নাগরিক সনদপত্র, অভিভাবকের আয়ের সনদ, জিআরসি সেলের মাধ্যমে অভিযোগ গ্রহণ ও নিস্পত্তি, হেল্প ডেস্কের মাধ্যমে জনগণকে সেবা সম্পর্কে অবগত ও সহায়তা করা, দরিদ্র নারীদের সহায়তার জন্য নিয়মিত সেলাই মেশিন বিতরণ, পৌরসভার প্রতিটি কার্যক্রমের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহির জন্য নগর সমন্বয়ন কমিটি, ওয়ার্ড কমিটি, সিবিও ও স্টিয়ারিং কমিটি গঠন করেছেন। 

গ্রাম আদালত গঠনের মাধ্যমে এলাকার সৃষ্ট জমিজমা ও কোর্ট থেকে আসা কেসের নথি এবং অন্যান্য বিরোধ মিমাংসাসহ আইনজীবী নিয়োগ করা হয়েছে। ত্রাণ ও পুনর্বাসন কার্যালয় থেকে বরাদ্দকৃত জিআর চাল, নগদ অর্থ, গৃহ নির্মাণের ঢেউটিন শীতবস্ত্র, বয়স্ক ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, কর্মজীবী ল্যাকটেটিং মাদার তহবিলের মাধ্যমে নারীদের আর্থিক সহায়তা, পুষ্টিকর খাবারসহ কৃতি ছাত্র-ছাত্রীদেও আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে। পৌর এলাকার শতভাগ স্যানিটেশন নিশ্চিতে স্যানিটারি ল্যাট্রিন বিতরণ করা হয়েছে। সংস্কৃতি ও বিনোদনের জন্য পৌর ফুটবল, ক্রিকেট, ব্যাটমিন্টন, কাবাডি ও ঐতিহ্যাবাহী নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে। প্রতিটি বাজেটের আগেই পৌর এলাকার জনগনের চাহিদা ও মতামত গ্রহণসহ উন্মুক্ত বাজেট গ্রহণ করা হচ্ছে। উন্নয়নের ছোঁয়ায় অবহেলিত বেলকুচি পৌরসভার চিত্র পাল্টে গেছে।

বেলকুচি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইউসুফ জী খান জানান, বিগত সময়ের মেয়রের চেয়ে বর্তমান মেয়রের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড চোখের পড়ার মতো। একজন নারী হিসেবে তিনি যে সফলতা দেখিয়েছেন, তা অতুলনীয়। শুধু পৌরসভার উন্নয়ন কাজের মধ্যেই নিজেকে সম্পৃক্ত রাখেননি। তিনি বঙ্গবন্ধু ও তার কন্যা শেখ হাসিনদার আদর্শ বাস্তবায়ন ও আওয়ামী লীগকে সুসংগঠিত করতে দলীয় সকল কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করছেন। দলীয় নেতাকর্মীদের সব ধরনের সহযোগিতা প্রদান করছেন। দল ও জনগণের সাথে সুসম্পর্ক থাকায় তিনি আগামীতে মনোনয়ন পেলে নৌকার বিজয় অনেকটাই সহজ হবে। 

বেলকুচির বিশিষ্ট ব্যবসায়ী রিয়াজুল ইসলাম জানান, তাঁত শিল্প সমৃদ্ধ বেলকুচি পৌরসভায় ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ গড়তে একজন সফল নারী মেয়র হিসেবে আশানুর বিশ্বাস ব্যবসায়ীদের আস্থা অর্জন করেছেন। জনসম্পৃক্ততা ও জনবান্ধব হওয়ায় আশানুর বিশ্বাস পৌরবাসী দরিদ্র-অসহায়দের আস্থা অর্জন করেছেন। 

পৌর মেয়র বেগম আশানুর বিশ্বাস বলেন, স্কুলজীবন থেকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে লালন করে ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত হয়ে পড়ি। কলেজ ছাত্রলীগের সম্পাদিকা ছিলাম। ১৯৯১-২০০৮ পর্যন্ত বেলকুচি উপজেলা আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক সম্পাদিকা, ২০০৯ থেকে অদ্যাবধি পর্যন্ত বেলকুচি উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এবং একই সাথে জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করছি। একই সাথে ১৯৯৭ সাল থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত জনগণের ভোটে তিনবার দৌলতপুর ইউপি চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেছি। ২০১৬ সালের ৩০ ডিসেম্বর দলের প্রয়োজনে ইউপি চেয়ারম্যান থেকে পদত্যাগ করে বেলকুচি পৌরসভা মেয়রপদে মনোনয়নে নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করে বিপুল ভোটে বিজয়ী হই।

তিনি বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে আস্থা রেখে আমাকে মনোনয়ন দিয়েছিলেন, তার একচুল ব্যত্যয় করিনি। পৌরসভার উন্নয়নের পাশাপাশি দলকে সুসংগঠিত ও বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাস কর্মকাণ্ড প্রতিহত করতে সবসময় মাঠে থেকেছি।’ 

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ