• বৃহস্পতিবার   ০৯ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ২৫ ১৪২৭

  • || ১৮ জ্বিলকদ ১৪৪১

৪২

ইসলামের দৃষ্টিতে নারী (পর্ব-২)

আলোকিত সিরাজগঞ্জ

প্রকাশিত: ১০ মার্চ ২০২০  

ইসলাম নারীর শিক্ষা অর্জনের অধিকার, সম্পত্তির অধিকার, স্বাধীন চিন্তা ও মত প্রকাশের অধিকার ইত্যাদির নিশ্চয়তা বিধান করেছে। ইসলামী শরীয়াতের সীমার মধ্যে থেকে অর্থনৈতিক ব্যাপারে শ্রম-সাধনা করার অনুমতি রয়েছে নারী-পুরুষ উভয়ের জন্যেই। (১ম পর্বের অংশবিশেষ)

২য় পর্ব...

নারী ও আমাদের সমাজ

আধুনিক সমাজে নারীকে অগ্রসর ভাবা হলেও আমাদের সমাজে নারীরা এখনো অনেক পিছিয়ে আছে, অনেক সুবিধা থেকে তারা বঞ্চিত এবং বহু ক্ষেত্রে তারা নির্যাতনের শিকার। আমাদের সমাজে নারীর প্রতি বঞ্চনা ও নির্যাতনের কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিচে তুলে ধরছি।

(ক) নারীর নিরাপত্তাজনিত সমস্যা : আমদের সমাজে নারীরা পূর্ণ নিরাপত্তা ভোগ করে না। আত্মীয়ের বাড়িতে যাওয়ার পথে অনেকে অপহৃত হয়। স্কুল কলেজে যাওয়ার পথে কিশোরী যুবতীরা হয়রানির শিকার হয়। প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে গিয়ে গ্রামঞ্চলে এখনো অনেক নারী ধর্ষিতা হয়।

(খ) নারী পাচার : নারী পাচার আমাদের দেশে একটি বিশাল সমস্যা। পাচার চক্রের সদস্যরা ছলে বলে কৌশলে কিংবা ফুসলিয়ে নারীদেরকে বিভিন্ন দেশে মোটা অংকের বিনিময়ে পাচার করে থাকে। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই পাচারকৃত এসব নারীদেরকে জোর পূর্বক দেহ ব্যবসা ও অন্যান্য অবাঞ্ছিত কাজে ব্যবহার করা হয়।

(গ) বেশ্যাবৃত্তিতে নিয়োগ : বেশ্যাবৃত্তি নারীদের জন্য একটি অবমাননাকর পেশা। এ বৃত্তিতে নিয়োজিত করার জন্য বহু চক্র নারীদেরকে কাজের প্রলোভন দেখিয়ে এবং নানা কৌশলে পতিতালয়ে নিয়ে আসে। পতিতাবৃত্তির পেশায় নিয়োজিত হয়ে এসব নারীদের জীবন বিষিয়ে উঠে। শুধু তাই নয় পতিতালয়েও তারা নানা নির্যাতনের মুখোমুখি হয়।

(ঘ) যৌন হয়রানি : আমাদের দেশে কিশোরী মেয়ে থেকে শুরু করে বিভিন্ন বয়সের নারীরা যৌন হয়রানির শিকার হয়ে থাকে। এ ক্ষেত্রে গার্মেন্টসে কর্মরত মেয়েরা সবচেয়ে বেশি শিকার হয়। বাসায় কর্মরত কাজের মেয়েদের ক্ষেত্রেও এমনটি হয়ে থাকে। তবে যে বিষয়টি অধিক দুঃখজনক তা হলো, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিশেষ করে বিশ্ববিদ্যালয়ে যখন ছাত্রীরা কেউ কেউ যৌন হয়রানির শিকার হয়।

(ঙ) গর্ভবতী নারীদের নির্যাতন : অনেক পরিবারে দেখা যায় গর্ভবতী নারীরা গর্ভাবস্থায় স্বামী, শ্বাশুড়ী ও ননদ কর্তৃক নিগৃহীত হন। এ অবস্থায় নারীদের পক্ষে গৃহাস্থালীর স্বাভাবিক কার্যক্রম করা সম্ভব হয় না বিধায় তারা মানসিক এবং অনেক সময় শারীরিক নির্যাতনের শিকার হন।

(চ) সম্পত্তির অধিকার থেকে বঞ্চিত করা : আমাদের দেশে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই নারীরা পিতৃসম্পত্তির উত্তরাধিকার থেকে বঞ্চিত হতে দেখা যায়। অনেক ক্ষেত্রে নারীরা স্বামীর সম্পত্তি থেকেও বঞ্চিত হয়ে থাকে।

(ছ) মোহরানা না দেয়া : বিপুল সংখ্যক নারী আমাদের দেশে তাদের প্রাপ্য মোহরানা থেকে বঞ্চিত থাকে। যারা মোহরানা পায় তারাও প্রায় ক্ষেত্রে নগদ পায় না। আর অনেক চতুর স্বামী বিয়ের রাতেই স্ত্রীর কাছে মাফ চেয়ে নিয়ে মোহরানা আদায়ের দায়িত্ব থেকে মুক্তি লাভ করার হীন চেষ্টা করে।

(জ) শিশুনারীকে শ্রমে বাধ্য করা : আমাদের দেশে এখন বিপুল সংখ্যক নারী শিশুকে শ্রমের কাজে লাগানো হয় যা অমানবিক। বিভিন্ন বাসা-বাড়িতে কাজের মেয়ে হিসেবে এদের প্রায়ই নানা রকম লোমহর্ষক নির্যাতনের মুখোমুখি হওয়ার কথা শুনা যায়।

(ঝ) নারী শ্রমের সঠিক মুল্যায়ন না করা : বহুক্ষেত্রে নারীরা তাদের প্রাপ্য বেতন ভাতা প্রাপ্ত হয় না। নামমাত্র বেতনে বাসা-বাড়িতে কাজের মেয়ে ও বুয়াদেরকে রাখা হয়। এছাড়াও দৈনিক ভিত্তিতে কর্মরত নারী শ্রমিক এবং গার্মেন্টসে কর্মরত মেয়েরাও চাকুরির নানা অর্থনৈতিক সুযোগ সুবিধা থেকে প্রায়ই বঞ্চিত থাকে। মুসলিম সমাজে বহু নারীরা আজো গৃহস্থালী কাজে তাদের পুরো সময়টুকুই ব্যয় করে। অথচ তাদের এ বিশাল শ্রমের কোনো অর্থনৈতিক মূল্যয়ন আমাদের সমাজে আজো হয়নি।

(ঞ) নারীকে পণ্য হিসেবে ব্যবহার : বিজ্ঞাপন চিত্রে নারীকে যৌন প্রতীক হিসেবে প্রদর্শন করা হয়। এছাড়া ফ্যাশান শো ও সুন্দরী প্রতিযোগিতাও নারীদেহে প্রদর্শনের এক একটি মহড়া। এসব কিছুতে মূলতঃ নারীকে পণ্য হিসেবে ব্যবহার করা হয়, যা নারীর আত্মমর্যাদাবোধ, সম্মান ও মানব মর্যাদার সঙ্গে অসংগতিপূর্ণ।

(ট) নারীর ধর্মীয় অধিকার হরণ : ধর্ম নারীকে যে সব অধিকার দিয়েছে অনেক সময় সেক্যুলার ও সংকীর্ণ দৃষ্টিভঙ্গির কারণে অনেকেই তাদের অধীনস্ত নারীকে তা থেকে বঞ্চিত করে থাকে। আবার অনেক ক্ষেত্রে নারীর ধর্মীয় অনুশাসন মানার ক্ষেত্রেও অনেক অন্তরায় সৃষ্টি করা হয়। যেমন নারীকে তার হিজাব পরিধানের অধিকার থেকে বঞ্চিত করার জন্য অনেক সেক্যুলার প্রতিষ্ঠান হিজাব পরিধান নিষিদ্ধ করে। এছাড়াও আমাদের দেশের প্রায় সব প্রতিষ্ঠানে নারীকে পুরুষের সঙ্গে একই কর্মক্ষেত্রে কাজ করতে বাধ্য করা হয়। এর ফলে ইসলাম নারীকে নিজস্ব কর্মক্ষেত্রে কাজ করার যে অধিকার দিয়েছে তা চরমভাবে শুধু বিঘ্নিতই হয়নি, বরং পুরুষ সহকর্মীদের দ্বারা তারা অনেক সময়ই যৌন নির্যাতনের শিকারও হয়ে থাকেন।

(ঠ) তালাকের অপব্যবহার : স্বামী-স্ত্রীর সুন্দর সহাবস্থান সম্ভব না হলে ইসলাম তাদের পরস্পর থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার জন্য তালাকের বিধান দিয়েছে এবং এ ক্ষেত্রে প্রাথমিকভাবে তালাক দেয়ার অধিকার স্বামীর হাতে ন্যস্ত করেছে। অনেক স্বামীই তালাকের অপব্যবহার করে তাদের স্ত্রীদের প্রতি নির্যাতন করে থাকে। সে ক্ষেত্রে তালাক হয় নির্যাতনের একটি হাতিয়ার।

নারী নির্যাতন রোধে ইসলামের ভূমিকা

ইতঃপূর্বের বক্তব্যে এটা স্পষ্ট হয়েছে যে, ইসলাম নারীর মান-মর্যাদা ও ইজ্জত-আব্রু হেফাযতের ব্যবস্থাই শুধু করেনি, বরং নারী যাতে কোনোক্রমেই দৈহিক কিংবা মানসিকভাবে অত্যাচারিত ও নির্যাতিত না হয় সে রকম দিক-নির্দেশনা দিয়েছে এবং তদনুযায়ী নিয়ম-পদ্ধতি ও বিধান জারী করেছে। নিচে তার একটি ছোট্ট বিবরণ দেয়া হলো-

(১) ইসলাম নারীর সার্বিক নিরাপত্তা বিধান করেছে। রাস্তায়, কর্মস্থলে ও যত্রতত্র নারীদেরকে হয়রানি করা তো দূরের কথা বরং ইসলাম নারীদের সৌন্দর্যের প্রতি দৃষ্টি না দিয়ে অবনত রাখার নির্দেশ দিয়েছে। আল্লাহ বলেন,

قُل لِّلْمُؤْمِنِينَ يَغُضُّوا مِنْ أَبْصَارِهِمْ وَيَحْفَظُوا فُرُوجَهُمْ ذَلِكَ أَزْكَى لَهُمْ إِنَّ اللَّهَ خَبِيرٌ بِمَا يَصْنَعُونَ

‘মুমিনদেরকে বলুন, তারা যেন তাদের দৃষ্টি নত রাখে এবং তাদের যৌনাঙ্গর হেফাযত করে। এতে তাদের জন্য খুব পবিত্রতা আছে। নিশ্চয় তারা যা করে আল্লাহ তা অবহিত আছেন।’ (সূরা: আন-নূর, আয়াত: ৩০)।

ইসলামের স্বর্ণযুগে দেখা যায়, নারীরা সুদূর বাগদাদ থেকে মক্কা নগরীতে একাকী গমন করলেও তাদেরকে কেউ উত্যক্ত করত না। কেননা এরকম নিরাপত্তাই ইসলামী সমাজে প্রত্যাশিত। যারা নারীদের নিরাপত্তার জন্য হুমকী, ইসলাম তাদেরকে তাযীরমূলক শাস্তি দেয়ার পথ খোলা রেখেছে। আর কেউ যেন নারীকে হয়রানি না করে বরং বোনের দৃষ্টিতে দেখে সেজন্যে পুরুষকে মনস্তাত্ত্বিকভাবে প্রস্তুত করার উদ্দেশ্যে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন,

إِنَّمَا النِّسَاءُ شَقَائِقُ الرِّجَال

‘নারীরা পুরুষদের সহোদরা।’ (সুনান আবি দাউদ ১/২৯৯, হাদিস নম্বর ২৩৬)।

শুধু তাই নয় ইসলামে নারীকে ধর্ষণ করা কিংবা করার চেষ্টা করা ও নারীকে মিথ্যা অপবাদ দেয়ার শাস্তি অত্যন্ত ভয়াবহ; যাতে খারাপ চিত্তের পুরুষরা এসব অবাঞ্ছিত কাজ থেকে বিরত থাকে।

(২) ইসলাম ব্যভিচার, দেহব্যবসা, নগ্নতা, বেহায়াপনা, অশ্লীলতা ও দেহপ্রদর্শনীকে নিষিদ্ধ করেছে। আল্লাহ বলেন,

وَلَا تَقۡرَبُواْ ٱلزِّنَىٰٓۖ إِنَّهُۥ كَانَ فَٰحِشَةٗ وَسَآءَ سَبِيلٗا

‘আর তোমরা ব্যভিচারের নিকটবর্তী হয়ো না। নিশ্চয় তা অশ্লীলতা ও খারাপ পথ।’ (সূরা: আল-ইসরা, আয়াত: ৩২)।

আরো ইরশাদ হয়েছে,

وَلَا تَقۡرَبُواْ ٱلۡفَوَٰحِشَ مَا ظَهَرَ مِنۡهَا وَمَا بَطَنَۖ [الانعام

‘আর তোমরা প্রকাশ্য ও অপ্রকাশ্য অশ্লীলতার কাছাকাছি যেয়ো না।’ (সূরা: আল-আনআম, আয়াত: ১৫১)।

অতএব, ইসলামে বেশ্যাবৃত্তির কোনো স্থান নেই এবং নারীদেরকে পণ্য হিসেবে ব্যবহারেরও কোনো বিধান নেই। বরং এ সবই ইসলামের দৃষ্টিতে নিষিদ্ধ। ইসলামের এ অনুশাসন মেনে চললে এগুলোর কারণে নারী যে নির্যাতন ও অবমাননার মুখোমুখি হয় সে পথ রুদ্ধ হয়ে যাবে।

আলোকিত সিরাজগঞ্জ
আলোকিত সিরাজগঞ্জ
ধর্ম বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর